আবুল বারাকাত লিজন পাটোয়ারী মাঠে চষে বেড়াচ্ছেন

সাইদ হোসেন অপু চৌধুরী: নির্বাচনকে সামনে রেখে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রার্থীরা। ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ছুটছেন।মাঠে চষে বেড়াচ্ছেন । দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি। নির্বাচনকে সামনে রেখে জেলাজুড়ে ভোটারদের মধ্যে বইছে উৎসাহ-উদ্দীপনাও। নির্বাচনের আচরণ বিধি মেনেই প্রচার-প্রচারণায় করছেন চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনের সকল প্রার্থীরা।

আগামী ১৭ অক্টোবর চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। সেই লক্ষ্যে ২৬ সেপ্টেম্বর প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। এরপর থেকেই প্রার্থীদের নিজের ছবি ও প্রতীক দিয়ে পোষ্টার ছাপান। সেই থেকে তাদের কর্মী, সমর্থক ও ভোটারদের বেশ উৎফুল্ল আর উজ্জীবিত দেখা যাচ্ছে। প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর থেকে প্রার্থীদের নাওয়া-খাওয়ার কোন ঠিক নেই। প্রতিদিন নিজের প্রতীক নিয়ে চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য, সংরক্ষিত সদস্য তাদের সমর্থক, কর্মীরা বেরিয়ে পড়ছেন গণসংযোগে।

মুখে হাসি নিয়ে প্রার্থীরা তাদের হাত বাড়িয়ে ভোটারদের বুকে টেনে নিচ্ছে। কুশলবিনিময়ের ফাঁকে নিজের প্রতীকের কথা স্মরণ করিয়ে চেয়ে নেন ভোট। প্রতীক পাওয়ার পর থেকে এভাবেই চলছে প্রার্থীদের নানা কর্মসূচি। এর সঙ্গে যোগ হয় মতবিনিময়সহ নানারকম প্রচার-প্রচারণা।

আসন্ন চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে সদস্য পদে চাঁদপুর সদর) ১নং ওয়ার্ড থেকে ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এই ওয়ার্ডের অন্য প্রার্থীদের থেকে প্রচার প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছেন চাঁদপুরের সর্বজন শ্রদ্ধেয়, জেলা শ্রমিকলীগের সাবেক সভাপতি ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম লুৎফুর রহমান পাটওয়ারী ও জেলা পরিষদের সংরক্ষিত সাবেক নারী সদস্য খোদেজা রহমানের সন্তান, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি’র একান্ত স্নেহধন্য, চাঁদপুর পৌর যুবলীগের সদস্য, সর্বস্তরের জনসাধারনের অত্যান্ত প্রিয় মানুষ, নম্র ও হাস্যোজ্জ্বল আবুল বারাকাত লিজন পাটোয়ারী।
যিনি আসন্ন চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে চাঁদপুর সদর ১ নং ওয়ার্ড থেকে সদস্য পদে ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন।

তিনি তফসিল ঘোষণার পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রচার-প্রচারনায় ও জনসমর্থনে এগিয়ে রয়েছে বলে মনে করছেন সাধারণ ভোটাররা।

চাঁদপুরের রাজনীতিতে আবুল বারাকাত লিজন পাটোয়ারী অন্যদের চেয়ে ভিন্ন এবং অনন্য। তার নেতৃত্বে জেলা পরিষদের আওতাধীন উন্নয়ন সেবা আরো গতিশীল করার লক্ষ্যে তাকে সদস্য পদে দেখতে চায় জন প্রতিনিধি, নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণ।

সদস্য পদে মেধাবী ও যোগ্য প্রার্থী হিসাবে আলোচনায় এগিয়ে আছেন তিনি। তার নির্বাচনের বিভিন্ন এলাকায় ভোটারদের কাছে পাচ্ছেন স্বতঃস্ফুর্ত সাড়া। সাধারণ মানুষের মধ্যে যে জনপ্রয়িতা রয়েছে তার বিজয়ী হওয়া প্রায় সুনিশ্চিত বলে মনে করছেন ভোটাররা।

তিনি এলাকার মানবসেবার এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। তিনি এলাকায় দলীয় লোকজন ছাড়াও জনসাধারণ, শিক্ষক, ছাত্র ও সাধারণ মানুষসহ সবার কাছে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি। এই প্রার্থী ইতি মধ্যেই তার নির্বাচিত এলাকার জনগনের নিকট প্রিয় ব্যাক্তি হয়ে ওঠেছে।

অত্যন্ত নম্রভদ্র বিনয়ী ও সেবাকর্মী বান্ধব এই যুবলীগ নেতা। স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা কর্মীরা জানান, আবুল বারাকাত লিজন পাটোয়ারীর রক্তশিরায় বহমান বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও চাঁদপুর সদর আসনের সংসদ, শিক্ষামন্ত্রীর জন্য রয়েছে অফুরান্ত্ম ভালোবাসা।

শেখ হাসিনার একজন কর্মী হিসেবে দলের জন্য অনেক ত্যাগ ও অবদান রয়েছে লিজন পাটোয়ারীর। দলের যেকোনো দু:সময় দল এবং দলের কর্মীদের জন্য নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন এই নেতা। তিনি নিজের সর্বোচ্চ চেষ্টার মাধ্যমে দলকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা দেয়ার চেষ্টা করেন।

আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে চাঁদপুর খবর পত্রিকার সাথে একাত্ত আলাপচারিতায় আবুল বারাকাত লিজন পাটোয়ারী বলেন, গরীব অসহায় মানুষদের সেবক হিসেবে আজীবন থাকতে চাই। এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষে চাঁদপুর সদর ওয়ার্ডকে উন্নয়নের মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

মানব সেবাই পরম ধর্ম আর আমি সেটা করে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বেঁচে থাকতে চাই। ইনশাআল্লাহ। তিনি বলেন বঙ্গবন্ধুর আর্দশকে প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে প্রতিটি মুহুর্তে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে লড়াই করে আসছি এবং সেটি সারা জীবন করে আসবো। মানুষের কল্যাণে কাজ করার জন্য রাজনীতি করি। শুধু আপনাদের ভালবাসা পাওয়ার আশায়। সর্বদা কাজের মাধ্যমেই মানুষের সমস্যা জানার এবং সমাধানের চেষ্টা করি।

চাঁদপুরবাসীর কল্যাণের জন্যই অনেক চ্যালেঞ্জ নিয়ে নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছি। সে লক্ষ্য নিয়েই কাজ করে যাচ্ছি। একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে এটাকে নিজের কর্তব্য বলে মনে করি। ক্ষমতা ভোগ করার বিষয় নয়, জনসেবার বিষয়। অর্থ বিত্তের লোভ লালসা আমার নেই। বাবার পথ অনুসরণ করেই জনগণের সেবা করে যাচ্ছি।

আর ভবিষ্যতে এই পথকে আরো প্রসারিত করতে আপনাদের দুয়ারে দুয়ারে হাটছি। আমার বিশ্বাস আপনারা আমাকে মুল্যায়ন করবেন। রাজনীতি করি মানুষের জন্য, নিজের জন্য নয়। তাই আপনাদের ভালোবাসা নিয়ে পথ চলতে চাই। আসন্ন চাঁদপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে সদস্য পদে সকলের দোয়া ও সমর্থন কামনা করেন।

একই রকম খবর