কচুয়ায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে বসতঘর পুড়ে ছাই

কচুয়া প্রতিনিধি ॥ কচুয়ায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে একটি ঘর পুড়ে ভষ্মীভুত হয়েছে। গত মঙ্গলবার মধ্য রাতে উপজেলার পশ্চিম সহদেবপুর ইউনিয়নের দারাশাহী তুলপাই আব্দুল লতিফ প্রধানীয়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এতে প্রায় সাড়ে ৩ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

সরেজমিনে জানা যায়, মঙ্গলবার মধ্য রাতে দারাশাহী তুলপাই গ্রামের আব্দুল লতিফ প্রধানীয়া বাড়ির মো. মুহিবুল্লাহর ঘরে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। আগুনের লেলিহান চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে মুহিবুল্লাহর ভাই আব্দুর রহিম দেখতে পান।

পরে তার ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এসে প্রায় ঘন্টাব্যাপী চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষন হন। ততক্ষনে ঘরে থাকা বিভিন্ন আসবাবপত্রগুলো পুড়ে যায়। সেখানে নতুন করে ঘর করার জন্য কাঠ রাখা ছিল সেগুলোও পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে প্রায় সাড়ে ৩ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে দাবি ক্ষতিগ্রস্থ মো. মহিবুল্লাহ।

অগ্নিকান্ডের সুত্রপাত কোথা থেকে হয়েছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুহিবুল্লাহর ভাই আব্দুর রহিম বলেন, শত্রুতাবশত পাশ্ববর্তী বাড়ির তাজুল ইসলামের ছেলে মেহেদী হাসান আমাদের ঘরে আগুন লাগিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যখন যায় তখন আমি তাকে দেখেছি। আমি ডাক চিৎকার দিলে বাড়ির লোকজন এসে পানি দিয়ে আগুন নিভাতে সাহায্য করে। আগুন নিভানোর জন্য আমি মেহেদীকে ধরতে পারিনি।

তিনি আরো বলেন, গত দুই বছর ধরে আমাদের জায়গায় তাজুল ইসলাম গরু দিয়ে বা বিভিন্নভাবে অত্যাচার করে আসছে। আমাদের গাছ পালা নষ্ট করে দিচ্ছে। তাদের এই এহেন অত্যাচারে অতীষ্ঠ হয়ে গত মঙ্গলবার সকালে আমার বড় ভাবি শাহেনা বেগম তাদের বাধা দিলে তাজু মেম্বার, তার স্ত্রী ও তার ছেলেরা আমার ভাবি ও বাড়ির অন্যান্য মহিলাদের লাঠি ও ঠ্যাংগা দিয়ে ধাওয়া করে। এমনকি তাদের প্রাননাশের হুমকি ও ঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। ওই দিন রাতেই তাজুল ইসলামের ছেলে মেহেদী হাসান আমাদের ঘরে আগুন লাগিয়ে দিয়ে ঘরের দক্ষিন পাশ দিয়ে পূর্ব দিকে দৌড়ে পালিয়ে যেতে দেখি আমি।

এব্যাপারে জানতে চাইলে তাজুল ইসলাম বলেন, তাদের সাথে আমাদের কোন ঝামেলা নেই। তাদের গৃহে কে বা কাহারা আগুন দিয়েছে তা আমার জানা নেই। তারা ষড়যন্ত্র করার জন্য আমাদের দোষারোপ করছে। আমরাই যদি আগুন লাগিয়ে দিতাম তাহলে আমরা গিয়ে কেন পানি দিয়ে আগুন নিভানোর চেষ্টা করতাম।

কচুয়া থানার ওসি মো. মহিউদ্দিন বলেন, এব্যাপারে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

একই রকম খবর