কচুয়ায় সদস্য পদে ত্রিমুখী লড়াই

ইসমাইল হোসেন বিপ্লব কচুয়াঃ ১৭ অক্টোবর সোমবার জেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে কচুয়ায় ০৬নং ওয়ার্ডে সদস্য পদে ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে বলে ভোটার জনপ্রতিনিধিসহ সাধারন মানুষের মধ্যে এমনটাই আলোচনা ঝড় বইছে।

এ জেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সমর্থিত মোবাইল প্রতীক প্রার্থী সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ওসমান গনি পাটওয়ারী ও আনারস প্রতীক স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: জাকির হোসেন প্রধানিয়া।

কচুয়া ওয়ার্ডে সদস্য পদে ৬ জন প্রার্থী হলেও ভোটার জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে দু’জনের নেই তেমন আলোচনা। অন্য ৪ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন, অটোরিক্সা প্রতীক সাবেক জেলা পরিষদ সদস্য মোঃ সালাউদ্দীন ভুইয়া, হাতি প্রতীক সাবেক জেলা পরিষদ সদস্য জোবায়ের হোসেন, টিউবওয়েল প্রতীক আলহাজ্ব তৌহিদুল ইসলাম খোকা ও তালা প্রতীক আহসান হাবীব প্রাঞ্জল। ত্রিমুখী লড়াইয়ে আলোচনায় শীর্ষে রয়েছে, সালাউদ্দিন ভূঁইয়া, জোবায়ের হোসেন ও তৌহিদুল ইসলাম খোকা।

অপর তালা প্রতীক প্রার্থী আহসান হাবিব প্রাঞ্জল, তিনি আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতা হিসেবে জয়লাভ করার যোগ্য বলেও ভোটার জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে ব্যাপক আলোচনায় রয়েছে। এ ওয়ার্ডে উপজেলা পরিষদের ৩টি ভোটসহ ১টি পৌরসভা ও ১২টি ইউনিয়নে মোট জনপ্রতিনিধিদের ভোটার সংখ্যা ১’শ ৭২টি।

এদিকে কচুয়া, মতলব উত্তর ও মতলব দক্ষিণ ০২নং ওয়ার্ডে সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্যরা হলেন, তাছলিমা আক্তার আখি (ফুটবল প্রতীক), নাজমা আক্তার আসমা আঁখি (দোয়া কলম প্রতীক), রওনক আরা রত্না (টেলিফোন প্রতীক) ও রোকেয়া বেগম (বই প্রতীক)। তবে বই প্রতীক রোকেয়া বেগম রওনক আরা রত্না কে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ায় ৩ জনের মধ্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। এ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৩ উপজেলায় ভোটার জনপ্রতিনিধিদের সংখ্যা ৪’শ পঁয়তাল্লিশ ভোট। রাত পোকা সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত কচুয়া উপজেলা পরিষদ হলরুমে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে।

ভোট গ্রহনে কচুয়া উপজেলার দায়িত্ব প্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসার কৃষি কর্মকর্তা মো: সোফায়েল হোসেন বলেন-ভোট গ্রহনে আমাদের সকল প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করা হয়েছে। ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট গ্রহন করা হবে। এতে কোন অনিয়মের সুযোগ নেই। তিনি ভোটার জনপ্রতিনিধি ও সংশ্লিষ্ট সকলের নিকট সহযোগিতা কামনা করেছেন।

ভোটার জনপ্রতিনিধিরা জানান, ত্রি-মুখী লড়াইয়ে যারা আমাদের পাশে থেকে মানুষের সেবা করবে সে যোগ্য প্রার্থীকে বেঁচে নিয়ে আমাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করব।

রাত পোহালেই জনপ্রতিনিধিদের ভোট প্রয়োগের পর গননা শেষে জয়-পরাজয়ের হিসাব নিকাশের মধ্যে সকল জল্পনা- কল্পনার অবসান ঘটবে।

 

একই রকম খবর