চাঁদপুরে উপবৃত্তি বাস্তবায়ন সম্পর্কিত ওরিয়েন্টশন প্রশিক্ষণ কর্মশালা

মো: রানা সরকার: চাঁদপুর সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের ব্যবস্থাপনায় ও প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তার ট্রাস্টের অধীন সমন্বিত উপবৃত্তি কর্মসূচি প্রকল্পের আয়োজনে উপবৃত্তি বাস্তবায়ন সম্পর্কিত ১দিনের ওরিয়েন্টশন প্রশিক্ষণ কর্মশালা-২০২২ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গতকাল ১ নভেম্বর (মঙ্গলবার) সকাল ৯টায় চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মো: হেদায়েত উল্ল্যাহ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান।

প্রধান অতিথি চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান বক্তব্যে বলেন, বর্তমান সরকার শিক্ষাবান্ধব সরকার। শিক্ষার্থীদের ঝড়েপড়া রোধ, গরীব অসহায় শিক্ষার্থীদের জন্য এ কর্মসূচী উন্মুক্ত করে দেওয়া উচিত। সকলকে শিক্ষা অর্জনের জন্য উৎসাহিত করতে উপবৃত্তি কর্মসূচীর আওতায় আনা একান্ত প্রয়োজন। উপবৃত্তি দেওয়ার জন্য প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রীসহ শিক্ষার্থীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাইছে।

তিনি বলেন, প্রাইমারি স্কুলের ন্যায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের সকল শিক্ষার্থীকে উপবৃত্তি দিবে এ প্রতাশা করছি। সবাই বৃত্তির আওতায় আসেনা।।মোবাইলের রেজিস্ট্রেশন অভিভাববের নামে থাকলে ভালো হবে। শিক্ষার কোন বয়স নাই এর কোন শেষ নাই। মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকে সকল শিক্ষার্থী উপবৃত্তির আওতায় আনার অনুরোধ করছি। উপবৃত্তিটা কিভাবে শতভাগ নিশ্চিত করা যায় তা জন্য কাজ করতে হবে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো: কামাল হোসেন।

চাঁদপুর সদর উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার সুমন কুমার দাস এর পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট এর সহকারি পরিচালক (উপবৃত্তি) মো: আনোয়ার হোসেন সোহাগ।

তিনি বলেন, অর্থের অভাবে শিক্ষার্থীরা ঝরে পড়ে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এ ঝড়েপড়া রোধ ও নারী শিক্ষার্থী বৃদ্ধির করার জন্য ও দেশের অসহায় মেধাবী শিক্ষার্থী ও অসহায় নাগরিকদের সামিজক সুরক্ষা দেওয়ার জন্য তৈরি করেছেন এ ট্রাস্ট করেছে। সেখান থেকে শিক্ষার্থীদের এ উপবৃত্তি প্রদান করা হয়। দেশের এক চতুথাংশ মানুষকে সরকার বিভিন্ন বিভিন্ন ভাতা ও সামািজক নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছ। এ অর্থবছরে টোটাল ১কোটি ৪০লক্ষ প্রাইমারির স্কুৃলেন শিক্ষার্থীর মায়েদের মোবাইলে উপবৃত্তি পাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের এ উপবৃত্তি প্রদান করা হয়। আমরা যারা এ দেশের নাগরিক আছি, সরকারের নাগরিকদের জন্য সুযোগ সুবিধা গুলো জানা প্রয়োজন। প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে উন্নয়নের রোল মডেল তৈরি করেছেন।

তিনি বলেন, চাঁদপুরের অগ্নিকণ্যা শিক্ষামন্ত্রী ডা: দীপু মনি মহোদয় শিক্ষার উন্নয়নের জন্য ছুটে চলছে সারা দেশে। তিনি সবসময় শিক্ষা নিয়ে ভাবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে দায়িত্ব দিয়েছেন তা শিক্ষামন্ত্রী মহোদয় সুচারুভাবে পালন করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশকে ডিজিটাল করেছেন। মোবাইলে শিক্ষার্থীরা উপবৃত্তি পাচ্ছে এটা ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য হচ্ছ। আমরা যে যেখানে আছি সরকারের সকল সুযোগ সুবাধা গুলো সেখান থেকে নিব। শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট থেকৈ ভর্তি সহায়তাসহ বিভিন্ন সতায়তা শিক্ষার্থীদের প্রদান করা হয়। সকল শিক্ষাকে একমুখী শিক্ষা বাস্তবায়ন করছে এটা সরকারের বড় অর্জন।

কর্মশালায় আরো বক্তব্য রাখেন, প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট এর সহকারি পরিচালক (অর্থ) মো: ফরিদ আহমেদ।

তিনি বলেন, সরকার ১৯৮৪ সালে শিক্ষার্থীদের জন্য উপবৃত্তি চালু করেছে। উপবৃত্তি চালুর কারনে বিদালয়ে ভর্তির হার বৃদ্ধি পেয়েছে। শিক্ষার হার বৃদ্ধি পেয়েছে। বতর্মানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিদর্শনে গেলে দেখতে পাই ছাত্রীর হার বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা সবাই জানি সারা বাংলাদেশে উপবৃত্তি উদ্যোগ গ্রহন করায়, শিক্ষার হার বৃদ্ধি ও ভর্তি বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন উপবৃত্তিতে আর কোন পার্সেন্ট নেই। আর্থিক ভাবে দুর্বল, গরীব ও মেধাবী শিক্ষার্থীরা এ উপবৃত্তি কর্মসূচী পাচ্ছে। উপবৃত্তি কর্মসূচী শুরু করার আগে যদি আমরা এ প্রশিক্ষনের আয়োজন করতে পারতাম তাহলে আরো ভালো হত।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের ইএমআইএস সেলের সহকারি প্রোগ্রামার মো: মাসুদ রানা, চাঁদপুর মাতৃর্পীঠ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক প্রানকৃষ্ণ দেবনাথ, বিষ্ণুদী ইসলামিয়া ফাযিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মো: জসিম উদ্দিন, বাবুরহাট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো: মোশারফ হোসেন, খেরুদিয়া দেলোয়ার হোসেন স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আফরোজা খানম, চাঁদপুর লেডী দেহলভী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: ইলিয়াছ হোসেন।

কর্মশালায় সভাপতির বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ও সদর উপজেলা সহকারি কমিশনার মো: হেদায়েত উল্ল্যাহ।

এসময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, চাঁদপুর জেলা শিক্ষা অফিসার মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, দাসাদী কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ এম ওমর ফারুকী, শাহতলী জিলানী চিশতী কলেজের অধ্যক্ষ মো: হারুন-অর রশিদ, শাহতলী কামিল মাদরাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা ইয়াছিন মিয়া, চাঁদপুর রেসিডেন্সিয়াল কলেজের অধ্যক্ষ হালিমা বিনতে কবির, হোসেনপুর আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ নাজিম উদ্দিন,

ছোট সুন্দর অলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ আবুল ফারাহ, শহীদ জাবেদ পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ওমর ফারুক, ডিএন হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ হোসেন, ষোলঘর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রেজাউল করিম প্রধানীয়া,।উত্তর শাহতলী জোবাইদা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নয়ন চন্দ্র দাস, জিলানী চিশতী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: মোহসিন উদ্দিন, মনিহার জিএম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিলকিছ আক্তার, সফরমালী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুল কাশেম,

পুরানবাজার এমএইচ উবির প্রধান শিক্ষক গণেশ চন্দ্র দাস, তরপুরচন্ডী জিএম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন খন্দকার, মৈশাদী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মান্নান, হামানকর্দ্দি পল্লীমঙ্গল উচ্চ বিদ্যালয় এর ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেন, চাঁদপুর পীর মহসিন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রওশন আরা, মহামায়া হানাফিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খোরশেদ আলম, রাজরাজেশ্বর ওমর আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: সফিউল্ল্যাহ সরকার,

রাজরাজেশ্বর দাখিল মাদরাসার প্রধান শিক্ষক এএইচএম হাসানুজ্জামান, ছোটসুন্দর এ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হারুনুর রশিদ, কৃষ্ণপুর জোহরা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইফুল ইসলাম, সেনগাঁও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল আজিজ সহ সদর উপজেলার ৬০টি প্রতিষ্ঠানের প্রধানগন ও সহকারি শিক্ষক ও কর্মকর্তাবৃন্দ।

 

একই রকম খবর