চান্দ্রা ইউনিয়নে চাল না পাওয়ায় জেলেদের বিক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার : একাধারে দুই দিন এসে দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়েও চাল না পেয়ে বিক্ষোভ করেছে চাঁদপুর সদর উপজেলার ১২ নং চান্দ্রা ইউনিয়নের জেলেরা।জানাযায়, এই ইউনিয়নে প্রথমে ১৯ ও পরে ২০ অক্টোবর চাল দেওয়ার জন্য জেলেদের সময় দেওয়া হয়।

সেই হিসেবে জেলেরা সকাল থেকেই এসে লাইনে দাঁড়ায় চাল নেওয়ার জন্য।কিন্তু পর পর দু’ দিনই তাদেরকে প্রায় দুপুরের সময় চলে যেতে বলা হয়।এতে প্রথম দিন জেলেরা স্বাভাবিক ভাবে চলে গেলেও পরের দিন তারা চাল দেওয়ার দাবী জানায়।

এক পর্যায়ে তারা সেখানে কিছু সময় ইউপি চেয়ারম্যান খান জাহান আলী কালু পাটওয়ারীর সামনেই বিক্ষোভ করে। এসময় একাধিক জেলে অভিযোগ করে বলেন,আমাদেরকে বলেছে চাল দিবে।তাই আমরা সকাল ৭ টায় এসে লাইনে দাঁড়িয়েছি।এখন দুপুর হয়ে গেছে অথচ আমাদেরকে চলে যেতে বলে। কালকেও আমরা এসে দীর্ঘ সময় দাড়িয়ে ছিলাম।আমরা গরীব মানুষ। আমাদের চাল আমাদের দিয়ে দিতে বলেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চান্দ্রা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের এক নেতা জানান,আমাদের ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ,যুবলীগ,ছাত্রলীগ জেলে প্রতি ১ কেজি করে চাল দাবী করতেছে।তারপর আবার বুঝেনতো ভাই মেম্বাররা আছে এছাড়াও অন্যান্য আরো বিষয় আছে এজন্যই চাল দিতে দেরি হচ্ছে।

ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক এক নেতা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানান , গতকাল রাতে ছাত্রলীগ,যুবলীগ দাবী করেছে তাদেরকে কার্ড প্রতি ১ কেজি করে চাল দিতে হবে।
তবে অপর এক ছাত্রলীগ নেতা জানান, আমাদের একটাই দাবী জেলেদের চাল ২৫ কেজি তাদেরকে ২৫ কেজিই দিতে হবে।

ট্যাগ অফিসার তাপস চন্দ্র দাস বলেন,আমি বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কে জানিয়েছি।
তবে এই বিষয়ে বক্তব্য দিতে রাজী হননি ইউপি চেয়ারম্যান খান জাহান আলী কালু পাটওয়ারী।তিনি বলেন, বুঝেনইতো সবকিছু প্রকাশ্যে বলা যায় না।আমি চাঁদপুর যাচ্ছি। পরে দেখি জানাবো।

এদিকে এই বিষয়ে বক্তব্যে নেওয়ার জন্য চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ( ভারপ্রাপ্ত ) হেলাল উদ্দিন চৌধুরীকে একাধিক বার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেনি।

বিষয়টি নিয়ে জেলা মৎস কর্মকর্তা গোলাম মেহেদী হাসান বলেন,আমি বিষয়টি এইমাত্র জানলাম। দেখি খোজ নিয়ে ব্যবস্থা নিবো।

একই রকম খবর