জেলা স্কাউট ও জেলা রোভার স্কাউটের আয়োজনে জুটাজুটি অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ স্কাউটস চাঁদপুর জেলা স্কাউট ও জেলা রোভার স্কাউট এর ব্যবস্থাপনায় চাঁদপুর সরকারি কলেজে, ৬৫ তম জোটাও ২৬ তম জুটি আয়োজন করা হয়।

গতকাল রোববার চাঁদপুর সরকারি কলেজের প্রশাসনিক ভবনের হল রুমে জোটা ও জুটি অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। তাতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা রোভার স্কাউটের কমিশনার ও চাঁদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর অসিত বরণ দাস।

এসময় তিনি বলেন, স্কাউট হলো তোমাদের মানুষের মতো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলা। আমরা সব সময় জানি সমাজে বা রাস্ট্রে তার সম্পৃক্তত্বা। কেপিটাল ইজম ছিল এক সময় ভাবা হতো সমাজ তাকে বেশি মূল্যায়ন করে। আমাতেন সন্তানেরা সেবার জন্য অনেক কাজ করে। তাদের সেই ভাবে মূল্যায়ন করে না। তোমরা স্কাউট সদস্যরা যানজট নিরসনে সড়কে কাজ করো।ট্রাফিক পুলিশের সাথে সহায়তা করে যানজট নিরসন হয়। এ কাজটা করতে গিয়ে তোমাদের নতুন একটা অভিঞ্জতা হয়েছে।

এ কাজে তুমি মূল্যায়িত হচ্ছনা। তারপর ও তুমি সেবা মুলক কাজ করছে, অন্যরা উপকৃত হচরছে। মানবতার সেবায় আমরা সবাই কি কাজ করছি। না করছি না। আমি একা সুখি হতে পারি না। মেঘনা নদী কার জন্য বয়ে চলে, নিজের জন্য না অন্যের জন্য। গাছ বেঁচে আছে কেন নিজের জন্য না অন্যের জন্য। সে ফল দেয় কিন্তু সে ফল গাছ খায়না। খায় অন্যে। তেমনি যারা স্কাউট করে তারা নিজের জন্য নয় অন্যের জন্য কাজ করে,এটাই হলো সেবা মুলক কর্মকাণ্ড। তোমার বয়স যদি আজকে ২০ বছর হয় তাহলে তুমি ১০ বছর ঘুমিয়েছ। জীবনের অধ্যেক বয়স শেষ হয়ে গেছে। এখন আর তোমার ঘুমের সময় নেই।

অন্যান্য বক্তারা বলেন, আমাদের স্কাউটিং হলো বিঞ্জান ভিত্তিক। তোমরা আজকে যা জানবে তাতে বিশ্বের অন্য স্কাউট বন্ধুদের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলতে স্বক্ষম হবে। বিশ্ব আজ আমাদের হাতের মোঠুয়। আজকে বিশ্বায়নের যোগে ইন্টারনেটের মাধ্যমে দ্রুত যোগাযোগ করা সম্ভব। আমাদের স্কাউটের মাধ্যমে তুমি তোমাকে গড়ে তুলতে সহায়তা করবে।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় আমরা অনেক পিছিয়ে আছে। আমরা অন্যদেশ ভ্রমন করেছি দেখেছি সেখানের ছোট গাড়ি চালকরা নিদিষ্ট স্হানে পার্কিংকরে। আমাদের দেশের চালকরা কোনো আইন মানে না যত্রতত্র পার্কিং করে থাকে। এটা তার অঞ্জতার কারনে। রোবার কিছুটা ঝিমিয়ে পরেছিল। রোবার ঝিমিয়ে পরলে স্কাউট ঝিমিয়ে পরবে। তাই তো চাঁদপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অসিত বরণ দাসকে রোবারের দায়িত্ব দেয়ায় এখন কিছুটা সঞ্চার হয়েছে রোবারের। ইন্টারনেটের যোগে যদি জুটা জুটিরা ইমেইল চালাতে না পারে তাহলে তারা অনেক পিছিয়ে পরবে।সরকার বিশ্বাস করে স্কাউট কে যদি সম্পৃক্ত করা যায় তাহলে দেশ আরো অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা স্কাউট সম্পাদক অজয় ভৌমিক, সহকারি পরিচালক ফিরোজ আহমেদ,কোষাধ্যক্ষ সুমন মজুমদার।অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা রোবারের সম্পাদক নজরুল ইসলাম। এ অনুষ্ঠানে চাঁদপুর সরকারি কলেজ সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রোভার, স্কাউটস,কাব স্কাউট সদস্য অংশগ্রহণ করে। জুটা জুটি একটি আন্তজার্তিক ইভেন্ট। তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে সর্বোত্তম ব্যবহার করে এ কার্যক্রমে রোভার স্কাউটস, কাব স্কাউটস অংশ গ্রহনের সুযোগ পাবে।

এ কার্যক্রমে অংশ গ্রহন করে স্কাউটর বিজ্ঞানভিত্তিক স্কাউটিং কার্যক্রম সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করতে পারবে এবং নিজেকে সম্পৃক্ত করার সুযোগ পাবে। পরে চাঁদপুর সরকারি কলেজের কম্পিউটার ল্যাব রুমে রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে বিশ্বের অন্যান্য দেশের স্কাউটদের সাথে বন্ধুত্ব ও স্কাউটিং খ্যাতি লাভ করে।

একই রকম খবর