মৈশাদীতে যুবক কর্তৃক শ্বাসরোধ করে ব্যবসায়ীকে হত্যা

শওকত আলী : চাঁদপুর সদর উপজেলার ৬নং মৈশাদী ইউনিয়নে রাস্তার পাশে দোকানের সামনে ইটার কনা ফেলানোকে কেন্দ্র করে তানজিল আহসান বেপারী (২২) নামে যুবকর মারধরের শিকার ও শ্বাসরোধ করে মবিন পাটওয়ারী (৫৮) নামে ব্যবসায়ী হত্যার শিকার হয়েছে। রবিবার (২৩ অক্টোবর) সকালের দিকে ওই এলাকার ৩ নম্বর ওয়ার্ড মধ্য মৈশাদী গ্রামের বাজারের উত্তর পাশে এ মমান্তিক ঘটনাটি ঘটে।

নিহত ব্যবসায়ী মবিন ওই গ্রামের বাগিচা বাড়ীর মমতাজ উদ্দিন পাটওয়ারীর ছেলে। তিনি নিজ বাড়ীর রাস্তার পাশের একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। অভিযুক্ত যুবক তানজিল বেপারী মাদ্রাসা শিক্ষক ও আনলাইনে ব্যবসায়ী ও পাশবর্তী বেপারী বাড়ীর মো. বিল্লাল হোসেন বেপারী লিটনের ছেলে।

নিহত ব্যবসায়ী মবিন পাটওয়ারীর ছেলে নিহাদ পাটওয়ারী বলেন, আমার বাবা সকালে দোকান খোলার জন্য রাস্তায় গিয়েছেন। সেখানে রাস্তার পাশে অন্য কেউ ইটের কনা রেখেছে। কিন্তু কনা রাখার বিষয়ে তানজিল আমার বাবাকে দায়ী করে এবং তানজিলের সাথে আমার বাবার কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তানজলি হাতাহাতি, মারধর করে গলাটিপে ধরে শ্বাসরোধ করে। এক পর্যায়ে রাস্তায় পেলে দেয়। আমার বাবা মাথায় ও মুখে আঘাত প্রাপ্ত হয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। সেখান থেকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ আসিবুল হাসান চৌধুরী মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি আরো বলেন, তানজিল বখাটে ছেলে। সে কোন কাজ করে না। এই ধরণের তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি করে।

মৈশাদী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম পাটওয়ারী বলেন, ঘটনা সত্য। আমরা জানতে পেরে গ্রাম পুলিশ পাঠিয়েছি। কারণ স্থানীয় মানুষ উত্তেজিত হয়ে তানজিলকে মারধর করতে যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রেখে দুপুর ১টার দিকে মডেল থানা পুলিশের কাছে তানজিল নামে যুবককে সোপর্দ করা হয়। তবে নিহত মবিন পাটওয়ারী আগ থেকেই অসুস্থ ছিলেন।

চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আব্দুর রশিদ বলেন, ঘটনার সংবাদ পেয়ে দুপুরে আসামীকে তার নিজ বাড়ী থেকে আটক করা হয়। বর্তমানে সে থানায় আছে। নিহত ব্যাক্তির মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষ হলে পরিবারে নিকট মরদেহ হস্তান্তর করা হবে। এই ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 

একই রকম খবর