শাহমাহমুদপুর ভাটেরগাঁও সম্পত্তিগত বিরোধে হামলায় বৃদ্ধসহ আহত ১২

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর সদর উপজেলার শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের ভাঁটেরগাঁও সম্পত্তিগত বিরোধে প্রতিপক্ষের হামলায় বৃদ্ধসহ ১২ জন আহত হয়েছে।

ঘটনাটি ঘটে ১৯ আগস্ট সকাল সাড়ে ৯টায় চাঁদপুর সদর উপজেলার শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের ভাঁটেরগাঁও গ্রামের হাফেজ খান বাড়িতে।

আহতরা হলেন- আব্দুল কুদ্দুস খান (৭৩), গিয়াস উদ্দিন খান (৪৫), মিলন খান (৩৫), সিপন খান (২৮), তামিম (১৬), রোকসানা (৩০), আছমা (২৬), নাজমা (৩২) সহ আরো বেশ কয়েকজন।

আহতরা চাঁদপুর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল চিকিৎসা নিয়েছেন। এঘটনায় আহত আব্দুল কুদ্দুস খানের ছেলে মো. সুমন খান বাদী হয়ে চাঁদপুর মডেল থানায় ৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ১০/১৫ জনের নামে মামলা দায়ের করে।

ধারা-১৪৩/৪৪৭/৩২৩/৩২৪/৩২৬/৩০৭/৩৫৪/৩৭৯/৪২৭/৫০৬ পেনাল কোড মামলা রুজু করা হয়। মামলা নং ৪৯। তারিখ ২০/৮/২২। মামলা বিবরণ এবং বাদী মো. সুমন খান জানান, দীর্ঘ দিন যাবত জায়গা সম্পত্তি নিয়ে বিবাদী শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের পাইকদি গ্রামেন খান বাড়ীর স্বদন খান, হোসেন খান, হুমায়ুন খান, জুয়েল খান, কামাল খান, সাইফুল খানের বিরোধ চলে আসছে।

তারা আমার চাচাতো ভাই এবং চাচা হয়। তারা দীর্ঘ দিন যাবত আমাদের বসত বাড়ীর সামনে জায়গা জোর পূর্বক দখল করার পায়তারা করে আসছে। গত ১৯ আগস্ট বিবাদীরাসহ আরো ৫০/৬০জন অজ্ঞাতরা দা, কুড়াল, লোহার রড, সাবাল ও শাঠি ও দেশীয় অশ্র নিয়ে আমাদের বসত বাড়ীর উঠানে থাকা বাঁশ ও গাছ কাটতে থাকে। আমার বাবা আলহাজ্ব আব্দুল কুদ্দুস খান দেখতে পেয়ে তাদের গাছকাটার বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলে কোন উত্তর না দিয়ে তাদের হাতে থাকা দা, কুড়াল, লোহার রড, সাবাল ও লাঠি-সোটা দিয়ে অতর্কিত হামলা করে। হামলায় আমার বাবর মাথার মাঝখানে এবং কপালের বাম পাশে ও হাতের দুই খানে মারাত্মক কেটে যেয়ে রক্তাক্ত জখম এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলা ফোলা জখম হয়। পরে তার ডাক চিৎকারে আমিসহ আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে তারা আমাদের উপর তাহাদের হাতে থাকা লোহার রড ও লাঠি-সোটা দিয়া এলোপাথাড়ি হামলা চালায়।

এতে গিয়াস উদ্দিন খান, মিলন খান, সিপন খান, তামিম, রোকসানা , আছমা, নাজমাসহ আরো বেশ কয়েকজন আহত হয়। এসময় বাড়ির মহিলারা ছুটে আসলে তাদের উপর হামলা করে ৪টি স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নিয়ে যায় হামলাকারীরা। যার আনুমানিক মূল্য ৩ লাখ ২০ হাজার টাকা।

হামলাকারীরা বাড়ির রোকসানা আক্তারকে টানা হেছড়া করিয়া তার পড়নের কাপড় চোপড় ছিড়িয়া শ্লীলতাহানী করে। হামলাকারীরা আমাদের বাঁশ গাছসহ বেশকিছু ফলজ গাছ কেটে ফেলে। হামলাকারীরা চলে যাওয়ার সময় আমার পরিবারের লোজজনদের মেরে লাশ গুম করে ফেলার হুমকি দেয়। আশপাশের লোকজনের সাহায্যে আহতদের চাঁদপুর সদর হাসপাতালে এনে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এঘটনায় বিবাদীদের পক্ষ হয়ে আলমগীর খান জানান, উভয় পক্ষকে নিয়ে বেশ কয়েকবার সালিশ/দরবার হয়েছিলো। কিন্তু কেউ কাউকে একতিল জাগা ছাড়তে রাজি নন। এতে আর কোন সমাধান হয়নি। কিছুদিন আগে বিদেশ থেকে কামাল ও জুয়েল আসলে তাদের চাচা কুদ্দুস খান জায়গার সমাধার করবে বলে।

সাবেক ওয়ার্ড মেম্বার মোস্তফা খান বলেন, আব্দুল কুদ্দুস খানের বাবার ৬ ছেলে। তাদের পুরান বাড়ি পাইকদিতে থাকে ৩ ভাই এবং নতুন বাড়িতে থাকে ৩ ভাই। তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি পরিমান প্রায় ৮ একর। তাদেন পুরান বাড়ির সম্পত্তির দামের তুলনায় নতুন বাড়ির সম্পত্তির দাম কয়েক গুণ বেশি হওয়ায় কেউ কাউকে ছাড় দিতে রাজি নয়।

আমরা উভয়পক্ষই নিয়ে একাধিক বার সমাধানের লক্ষ্যে বসেছি। কিন্তু তাদের কেউ কাউকে ছাড় দিতে রাজি নন। তাই তাদের মাঝে কিছু দিন পর পর ঝগড়া হয়।

একই রকম খবর