সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী এহছানুল হক মিলনকে চাঁদপুর কারাগারে প্রেরণ

ইব্রাহিম খান/ ইসমাইল হোসেন বিল্পব : সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ও বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক চাঁদপুর(কচুয়া ) ১ আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী আ ন ম এহছানুল হক মিলনকে তিন মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। আগামী রোববার আটক মিলনের জামিনের আবেদন করা হবে বলে জানান তার আইনজীবী অ্যাড: কামরুল ইসলাম ।

শুক্রবার (২৩ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১২টার দিকে চাঁদপুরের অতিরিক্ত সিনিয়র চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. শফিউ আজম এ আদেশ দেন। পরে তাকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে চাঁদপুর কারাগারে নিয়ে যায় পুলিশ।

এর আগে শুক্রবার ভোরে বন্দরনগরীর চকবাজারের চট্টেশ্বরী রোডের ‘মমতাজ ছায়ানীড়’ নামক একটি বাসা থেকে চাঁদপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করেন।

মিলনের পক্ষের আইনজীবীরা জানান, তার বিরুদ্ধে আদালতে ২৬টি মামলা চলমান রয়েছে। এর মধ্যে ১৭টি মামলার ওয়ারেন্ট ছিল। আদালত ৯৩/১৫, ২১২/১৫ ও ১৪/১৫ নম্বর মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন। আগামী ২৫ নভেম্বর বাকি মামলার জামিন শুনানির জন্য এহসানুল হক মিলনকে চাঁদপুর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হবে।

মিলনের পক্ষের আইনজীবী অ্যাড: কামরুল ইসলাম দৈনিক চাঁদপুর খবরকে বলেন, মিলনের বিরুদ্ধে চাঁদপুরে আদালতে ২৬টি মামলা বিচারাধীন। মঙ্গলবার (২০ নভেম্বর) জিআর ২৬৪/০৯ মামলায় তার আদালতে হাজির হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু গ্রেফতার আতঙ্কে ওইদিন আদালতে হাজির হননি তিনি।

তিনি আরও বলেন, সবগুলো মামলায় জামিনে ছিলেন মিলন। কিন্তু দীর্ঘদিন উচ্চ শিক্ষার জন্য বিদেশে ছিলেন তিনি। তাই এসব মামলায় হাজিরা দিতে পারেননি। এসব মামলার ১৭টিতে তার বিরুদ্ধ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

এদিকে আদালতে হাজিরার সময় নিরাপত্তা চেয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) কাছে আবেদন করেছেন এহছানুল হক মিলন। গত ১৮ নভেম্বর ‘আত্মগোপনে’ থাকা মিলনের সই করা চিঠি নিয়ে ইসিতে যান তার স্ত্রী নাজমুন্নাহার বেবী। শুক্রবারও চাঁদপুর আদালতে বিএনপির জেলা আহবায়ক শেখ ফরিদ আহমেদ মানিকসহ জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মিলনের স্ত্রী উপস্থিত ছিলেন।

একই রকম খবর

Leave a Comment