কচুয়ায় অনুমতি ছাড়াই সড়কের গাছ কেটে বিক্রি করার অভিযোগ

কচুয়া প্রতিনিধিঃ কচুয়ায় অনুমতি ছাড়াই সড়কের পাশ থেকে ছোট-বড় প্রায় ১৫টি গাছ কেটে বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় খোরশেদ আলম মজুমদার নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে। গতকাল বুধবার সকালে উপজেলার ৮নং কাদলা ইউনিয়নের কাদলা গ্রামের মজুমদার বাড়ির এলাকায় গ্রামীণ পাকা সড়কের দুই পাশে অবৈধভাবে এ গাছ কাটার অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয়রা জানান, কাদলা গ্ৰামের মজুমদার বাড়ির এলাকায় সরকারি সড়কের গাছ কেটে করে বিক্রি করেছেন ওই বাড়ির ইউনুছ মজুমদারের ছেলে খোরশেদ আলম মজুমদার। তিনি উপজেলা বন কর্মকর্তা ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছ থেকে অনুমতি না নিয়ে গাছগুলো বিক্রি করে দেন।

অভিযুক্ত খোরশেদ আলম মজুমদার বলেন, গাছগুলো আমি রোপণ করেছি, আমার জমিনের উপর দিয়ে রাস্তাটি নির্মাণ হয়েছে। আমার নিজস্ব জায়গার গাছ বিক্রি করে দিয়েছি।

সড়কের পাশে সরকারি গাছ কাটা যায় কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সরকারের এখানে কোন গাছ রোপন করে না, আমার কাছে আমি বিক্রি করছি, এতে কারো সমস্যা নেই।

কাদলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নুরে-ই-আলম রিহাত বলেন, সড়কের পাশে সরকারি গাছ কাটার বিষয়ে ইতিপূর্বে আমার নিজস্ব ফেসবুক আইডি ও পরিষদের ইউপি সদস্যদের মাধ্যমে রাস্তার পাশে যে কোন ছোট বড় গাছ না কাটার জন্য সতর্ক বার্তা দিয়েছি। খোরশেদ আলম মজুমদার আমার কাছ থেকে কোনো অনুমতি নেননি গাছ কাটার বিষয়ে।

উল্লেখ্য, বন বিভাগের বিধিমালায় বলা আছে ব্যক্তি মালিকানাধীন বা সরকারি জমি থেকে গাছ কাটার আগে সংশ্লিষ্ট এলাকার বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কাছে নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হয়। এরপর তদন্ত করে গাছ কাটার যৌক্তিকতা পাওয়া গেলে গাছের দরদাম নির্ধারণ ও পরবর্তী সময়ে আরও গাছ লাগানোর শর্তে গাছ কাটার অনুমতি দেওয়া হয়। এ প্রক্রিয়া বন বিভাগের মাধ্যমে করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

একই রকম খবর