কল্যাণপুরে জেলেদের চাল আত্মসাতের অভিযোগে দু’টি গোডাউন সিলগালা

ইব্রাহিম খান /সাইদ হোসেন অপু চৌধুরী /মাসুদ হোসেন : চলতি অর্থবছরের মার্চ-এপ্রিল দু’মাস পদ্মা-মেঘনার অভয়াশ্রম এলাকায় জাটকা ধরা থেকে বিরত থাকা জেলেদের খাদ্য সহায়তা ভিজিএফের দেড় টন চাল আত্মসাতের অভিযোগে চাঁদপুর সদরের কল্যাণপুর ইউনিয়ন পরিষদের দু’টি গোডাউন সিলগালা করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

অভিযোগের তীর কল্যাণপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন রনির বিরুদ্ধে ।

১৮ মে বুধবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সানজিদা শাহনাজ এর নির্দেশে গোডাউনগুলো সিলগালা করা হয়।

চাঁদপুর সদর সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা মো.মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘জেলেদের খাদ্য সহায়তা চাল নির্দিষ্ট সময়ে বিতরণ বিলম্ব হওয়ায় আজকে ইউনিয়নের দু’টি গোডাউনে বরাদ্দ ৫৩.৬৮০ মে.টন চালের মধ্যে দেড় টন কম পাওয়া যায়। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানালে তিনি গোডাউন দু’টি সিলগালা করার নির্দেশ দেন।

তিনি আরো বলেন,‘এ ইউনিয়নে নিবন্ধিত জেলার সংখ্যা ৭৩৮জন। বরাদ্দ এসেছে ৬৭১ জনের। বরাদ্দকৃত চাল দু’মাসের ৪০ কেজি করে ৮০ কেজি প্রত্যেক জেলে পাবে ।’

এ বিষয়ে চাঁদপুর সদর ইউএনও সানজিদা শাহনাজ বলেন, ‘চাল না থাকার বিষয়টি জানার পর দুটি ভবন সিলাগালা করার নির্দেশ দেই। আমরা আপাতত চাল বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ রেখেছি। চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

জেলেদের চাল আত্মসাতের বিষয়ে বক্তব্যের জন্য কল্যানপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন রনি পাটোয়ারীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,আমি যড়ষন্ত্রের স্বীকার । চালের জায়গায় চাল আছে । আমি কোথাও চাল নেইনি । পরিষদের গোডাউনে সরকারি চাল মজুদ আছে ।

একই রকম খবর