চাঁদপুরে কর্নফুলী হাসপাতাল ভবনের সুয়ারেজের দুষিত পানি

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর তালতলা আ: করিম পাটওয়ারী সড়কে কর্নফুলী হাসপাতাল ভবনের (হাফিজ মঞ্জিল) সুয়ারেজের পানিতে প্রতিবেশীরা চরম দুর্ভোগে পড়েছে।

প্রতিবেশীর বাড়ীর গেটের সামনে চলাচলের পথে ভবনের সুয়ারেজের দুষিত পানি প্রতি মাসেই উপচে পড়ে লোকজনের চলাচল বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে। ওই সময় সড়কের পাশ দিয়ে চলাচলকারী পথচারীরা নাকে কাপড় দিয়ে দুর্গন্ধে চলাচল করাটাও দুর্বিষহ হয়ে পড়ে।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে প্রতিবেশীরা গেট দিয়ে নিজ বাড়ীতে প্রবেশ করতে গেলে দুষিত পানি ও দুর্গন্ধে বাড়ীতে প্রবেশ করতে পারেনি। এমন অবস্থা দেখে সাথে সাথে প্রতিবেশী বাড়ীর সাংবাদিক নেয়ামত হোসেন পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক আ: হান্নান ও পৌরসভার পয়:প্রনালীর দায়িত্বে থাকা শাহজাহান খানকে বিষয়টি অবহিত করেন।

তাতক্ষনিক পরিবেশ অধিদ্প্তরের সহকারি পরিচালক আ: হান্নান ঘটনাস্থলে সরেজমিনে দেখে ভবনের মালিক মো: হানিফ ও হাসপাতালের মালিক আ: কুদ্দুছ মুন্সীকে নিয়ে আলোচনা করে আগামী এক মাসের মধ্যে পয়:প্রনালী সংস্কারসহ হাসপাতাল ও ভবনের জানালা দিয়ে প্রতিবেশী সাংবাদিকের বাড়ীর প্রবেশ পথে আবর্জনা ফেলা বন্ধের সময় বেঁধে দেন।

এবিষয়ে এক মাসের বেঁধে দেয়া সময়ের পরে সাংবাদিক লিখিত অভিযোগ দিলে পরিবেশ আইনে মামলা করার কথা বলা হয়। এর কিছুক্ষনের মধ্যেই চাঁদপুর পৌরসভার সচিব আবুল কালাম ভূঁইয়া গাড়ী থেকে নেমে এসে বিষয়টি দেখে সাংবাদিক নেয়ামত হোসেনকে অভিযোগ দাখিল করতে বলেন।

এমনকি সচিব সাহেব পৌরসভার মেয়রকে ঘটনাটি জানিয়ে পরবর্তীতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের কথাও বলেন। ভবনের এয়ারকন্ডিশনটি বাউন্ডারী দেয়ালের উপর এসে পরার বিষয়টি তিনি অন্যভাবে দেখেছেন।

প্রসঙ্গত: প্রতিবেশী সাংবাদিক নেয়ামত হোসেন কর্নফুলী হাসপাতালের বাড়ীর মালিক ও ভাড়াটিয়া আ: কুদ্দুস মুন্সীকে প্রায়শ: পয়:প্রনালীর দুষন ও জানালা দিয়ে ফেলা আবর্জনার বিষয়ে প্রতি মাসেই অভিযোগ দিলেও স্থায়ী কোন সমাধান হচ্ছে না।

বিগত ১৪/১৫ বছর যাবত বাড়ীর গেটের সামনে এহেন সুয়ারেজের দুষিত পানির দুষনের ফলে আশপাশের দোকানদাররা দোকান বন্ধ করে চলে যেতে হয়।

একই রকম খবর