চাঁদপুরে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা-২০২২ বাস্তবায়নে নিম্নোক্ত কর্মসূচি

প্রেস রিলিজ : মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ-এর সার্বিক দিকনির্দেশনায় প্রযুক্তিবান্ধব নানা উদ্ভাবন ও সেবা তৈরির মাধ্যমে ইতোমধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ কার্যক্রম বাস্তবায়ন সম্ভব হয়েছে।

উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় ২০৩০ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশকে টেকসই লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে মডেল এসডিজি রাষ্ট্র এবং ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। প্রতিনিয়ত প্রযুক্তির উন্নয়নের সাথে নিজেদের দক্ষতা ও সক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি বিশ্ব দরবারে প্রযুক্তির ক্ষেত্রে নেতৃত্ব প্রদানে কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।

প্রযুক্তিবান্ধব নানা উদ্ভাবনের মাধ্যমে নাগরিক জীবনকে আরো সহজ, সমৃদ্ধ এবং স্মার্ট করে গড়ে তুলতে সারাদেশের উদ্ভাবকদের উদ্ভাবনী সক্ষমতা দেশের প্রয়োজনে কাজে লাগাতে দেশব্যাপী আয়োজন করা হচ্ছে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা ২০২২ এবং উদ্ভাবনী অলিম্পিয়াড। এর মাধ্যমে অংশগ্রহণমূলক ও অন্তর্ভূক্তিমূলক উদ্ভাবনের মাধ্যমে আগামীর লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সহজ হবে।

ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা ২০২২ এবং উদ্ভাবনী অলিম্পিয়াড উদযাপন/ বাস্তবায়নে নিম্নোক্ত কর্মসূচি ও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

১। মেলার তারিখ, সময় ও স্থান: চাঁদপুর স্টেডিয়ামে আগামী ২০ ও ২১ নভেম্বর, ২০২২ তারিখে সকাল: ৯.০০ টা থেকে বিকাল: ৫.০০ টা পর্যন্ত ০২ দিন ব্যাপী ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা ২০২২ এবং উদ্ভাবনী অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত হবে।এছাড়া সকাল ৯:৩০ ঘটিকায় “চতুর্থ শিল্প বিপ্লব এবং ২০৪১ সালের স্মার্ট বাংলাদেশ” শিরোণামে একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে।

উক্ত সেমিনারে ড. এম মেজবাহ উদ্দিন সরকার, অধ্যাপক এবং গবেষক, আইআইটি, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় “চতুর্থ শিল্প বিপ্লব এবং ২০৪১ সালের স্মার্ট বাংলাদেশ” এ বিষয়ে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন।

২। বর্ণাঢ্য র্যালি: ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার উদ্বোধনী দিনে সকাল ০৯:০০ ঘটিকায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয় হতে স্টেডিয়াম পর্যন্ত বর্ণাঢ্য র্যালি আয়োজন করা হবে এবং র্যালির সামনে পুলিশের বাদক দল এবং পিছনে স্কাউটসের বাদক দল থাকবে।

৩। মেলা প্রাঙ্গণকে ৪টি প্যাভিলিয়নে ভাগ করে ক্যাটাগরী ভিত্তিক ৭০টি স্টল স্থাপন করা হবে।

ক) প্যাভিলিয়ন-১: উদ্ভাবনী উদ্যোগ ও স্টার্টআপ: অংশগ্রহণ করবেন- প্রত্যেক উপজেলা থেকে মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক ও উন্মুক্ত পর্যায়ে উদ্ভাবনী অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণকারী ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অধিকারী শিক্ষার্থী/ শিক্ষার্থীদের দল

খ) প্যাভিলিয়ন-২: ডিজিটাল সেবা: জেলা পর্যায়ের সকল দপ্তর তাঁর স্ব-স্ব ডিজিটাল সেবা তুলে ধরবেন।

গ) প্যাভিলিয়ন-৩: হাতের মুঠোয় সেবা: ডিজিটাল সেন্টার, পোস্ট ই-সেন্টার, ই-কমার্স, ব্যাংক, বীমাসহ অন্যান্য আর্থিক সেবাপ্রদানমূলক প্রতিষ্ঠানসমূহ।

ঘ) প্যাভিলিয়ন-৪: শিক্ষা, দক্ষতা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান: শিক্ষা, দক্ষতা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান সৃজনে সম্পৃক্ত দপ্তরসমূহ এ প্যাভিলিয়নে অংশগ্রহণ করবেন।

৪। মেলায় অংশগ্রহণকারী স্টলসমূহের তথ্য প্রদানের নিমিত্ত প্রত্যেক দপ্তর থেকে একজন ফোকাল পয়েন্ট কর্মকর্তা নির্ধারিত থাকবেন।

৫। মেলার প্রতি মানুষের আগ্রহ ও উপস্থিতি বাড়ানোর লক্ষে মেধাবী, কৃতি শিক্ষার্থী এবং সংস্কৃতি কর্মীদের মেলায় আমন্ত্রণ জানানো এবং তাঁদের জন্য আলাদা কর্ণারের ব্যবস্থা থাকবে।

ধন্যবাদান্তে/-
কামরুল হাসান
জেলা প্রশাসক
চাঁদপুর

একই রকম খবর