চাঁদপুরে ২দিনে ১৯ জনের করোনা শনাক্ত, উপসর্গ নিয়ে ৪ জনের মৃত্যু

বিশেষ প্রতিনিধি : চাঁদপুর জেলা সদর ও উপজেলায় ২দিনে আরো ১৯ জনের করোনা ভাইরাস শনাক্তা হয়েছে। নতুন ১৯জনসহ জেলায় করোনায় আক্রান্ত সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬৬জন (একজনের রিপোর্ট দ্বিতীয় বার পজেটিভি এসেছে)।

করোনা উপসর্গ নিয়ে চাঁদপুর শহরের নিউ ট্রাক রোডে রোজ গার্ডেন (চায়না বিল্ডিং) নামে ভবনে করোনা উপসর্গ নিয়ে ছকিনা বেগম (৮০) নারীর মৃত্যু হয়েছে, মতলব দক্ষিণ উপজেলায় ঢাকা থেকে আসা একজন পুরুষের মৃত্যু, কচুয়া উপজেলায় মৃত্যুবরণ করেছেন একজন পুরুষ ও করোনা উপসর্গ নিয়ে শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে শুক্রবার বিকেলে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে ।

শুক্রবার দুপুরে চাঁদপুর সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে গনমাধ্যমকে জানান, আজ ঢাকা থেকে ২দিনের ৮৪টি রিপোর্ট এসেছে। এর মধ্যে ১৯ জনের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ এবং ৬৫ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ বসেছে।

জেলায় এই পর্যন্ত করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ১৪জন। এর মধ্যে চাঁদপুর সদরে ৬জন, ফরিদগঞ্জে ৩জন, কচুয়ায় ২জন, হাজীগঞ্জে ১জন, শাহরাস্তিতে ১জন ও মতলব উত্তরে ১জন।

সিভিল সার্জন অফিস সূত্র জানায়, শুক্রবার সকালে ৮৪জনের নমুনা টেস্টের রিপোর্ট এসেছে। এর মধ্যে ১৯জনের রিপোর্ট করোনা পজেটিভ। বাকী ৬৫জনের রিপোর্ট করোনা নেগেটিভ।

চাঁদপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সাজেদা বেগম পলিন জানান, নতুন আক্রান্ত ৬জনের মধ্যে শহরের চৌধুরী মসজিদ সংলগ্ন স্ট্র্যান্ড রোডের ২জন পুরুষ (একজনের বয়স ৫১ বছর ও অন্যজনের বয়স ৫২ বছর), বড়স্টেশন ক্লাব রোডের ২জন নারী (২২) এবং কল্যাণপুর ইউনিয়নের কল্যান্দী গ্রামের ২ যুবক (২৪) রয়েছেন।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাসিম উদ্দিন জানান, লকডাউন করার জন্য নির্দিষ্ট অফিসার রয়েছে। তারা আক্রান্তদের বাড়ী লকডাউন করে দিয়েছেন।

হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানাগেছে, হাজীগঞ্জে নতুন আক্রান্ত ৩ জনের মধ্যে মধ্যে একজনের বাড়ি কচুয়া উপজেলায়। তিনি হাজীগঞ্জ এসে করোনা নমুনা দিয়েছেন। তবে তিনি কচুয়ায় বসবাস করছেন। বাকী ২জনের একজন

হাজীগঞ্জ পৌর এলাকায় আক্রান্ত হয়েছেন ১জন ব্যবসায়ী। এই উপজেলায় ৩জন আকান্ত দেখানো হয়েছে। এর মধ্যে একজনের রিপোর্ট দ্বিতীয়বার পজিটিভ এসেছে এবং একজন কচুয়ার বাসিন্দা হাজীগঞ্জ উপজেলায় করোনার নমুনা পরীক্ষা দিয়েছেন। ওই ব্যাক্তিকে কচুয়া উপজেলার পরিসংখ্যানে দেখিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ আশ্রাফ আহম্মেদ চৌধুরী জানান, ফরিদগঞ্জে করোনায় আক্রান্ত ৩ জন পৌর এলাকার কাচিয়াড়া একই ভবনে বসবাস করেন। এর মধ্যে চাঁদপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-২ এর একজন কর্মকর্তা, তার স্ত্রী এবং ওই ভবনেই থাকেন বিদ্যুৎতের একজন কর্মচারী। ওই ভবনের একটি ইউনিট লকডাউন করে দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানাগেছে, শাহরাস্তি উপজেলায় নতুন করে দুইজনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে একজনের বাড়ী চিতশী উত্তর ইউনিয়নের বড়তুলা গ্রামের একজন এবং উপজেলার টামটা দক্ষিণ ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামের একজন। আক্রান্ত দু’জনই পুরুষ।

কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সালাহ উদ্দিন মাহমুদ জানান, কচুয়ায় ডেন্টিস্ট মানিক মজুমদার সোহাগ (৩৬) করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তার বাড়ী ও কর্মস্থল লকডাউন করা হয়েছে। জানাগেছে, সোহাগ হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা দিয়েছেন।

একই রকম খবর