চাঁদপুর জেলা কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশনের অভিষেক

ইব্রাহিম খান : বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন এসোসিয়েশন চাঁদপুর জেলা শাখার উদ্যোগে অভিষেক অনুষ্ঠান ও শিক্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

১৯ নভেম্বর শনিবার সকালে শহরের রশুই ঘরে এই অনুষ্ঠানে উদ্বোধক হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ওসমান গনি পাটওয়ারী।

এসময় তিনি বলেন, আমাদের বেগম ফজিল্লাতুন্নেছা, জাতীয় চার নেতা সহ ৩০ লাখ মানুষের তাজা রক্ত ও ২ লাখের অধিক মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে আমরা এই সোনার বাংলা উপহার পেয়েছি। তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি। একই সাথে মহান মুক্তিযুদ্ধের যেসব বীর সেনানীরা বেঁচে আছেন মহান রাব্বুল আলামিনের কাছে তাদের নেক হায়াত কামনা করছি। আমাদের যে বাঙালি জাতি, হাজার বছরের যে ইতিহাস, বাঙালি জাতি কোনদিনও স্বাধীনতার স্বাদ পায়নি। সারা জীবন তারা নির্যাতিত নিপেরিত ছিলো। সেই বাঙ্গালী জাতি দীর্ঘ ৩০ টি বছর লড়াই সংগ্রাম করে গেছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটা ঘুমন্ত বাঙালি জাতিকে জাগিয়ে তুলেছিলেন। তিনি বাঙালি জাতিকে বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার সুযোগ তৈরি করে দিয়েছিলেন। একটা দেশকে রক্ষা করতে তিনি যে সাহসী উদ্যোগ নিয়েছেন, তাঁর মতো মহান নেতার কারনেই আমরা আজ বাংলার মাটিতে দাঁড়িয়ে কথা বলতে পারছি।

তিনি বলেন, শিক্ষক সমাজকে আমি সর্বোচ্চ সম্মান করি। আমি মনে করি আমার পিতা দুইজন একজন হচ্ছেন আমাদের জন্মদাতা, পিতা অন্যজন হচ্ছেন আমাদের জ্ঞানের আলোর শিক্ষক পিতা। যিনি আমার মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়েছেন। এই শিক্ষক সমাজের কাছে জাতি সারাজীবন ঋণী থাকবে। জাতির পিতার সারা জীবনের যে বাংলা, যে স্বপ্ন দেখেছেন।

সে আমাদের মত একজন মানুষ ছিলেন তার পরিবার ছিলো, সন্তান ছিলো। তিনি সমস্ত সুখকে হারাম করে একটা জাতিকে তার লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য একটা মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা জাতির পিতা কে পেয়েছি। কিন্তু আমরা সে জাতির পিতাকে রক্ষা করতে পারিনি। তাকে নির্মম হত্যার শিকার হতে হয়েছে কেন তিনি এই বাংলাকে স্বাধীন করেছিলেন। কেন তিনি এই বাঙালি জাতিকে একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ উপহার দিয়েছিলেন এটাই ছিল তার অপরাধ আজ তারই সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা তার পিতার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিকেএ কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান এল এম কামরুজ্জামান।
বিকেএ চাঁদপুর জেলা শাখার সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বিকেএ কেন্দ্রীয় কমিটির প্রধান উপদেষ্টা গোলাম মোস্তফা জী এম,বিকেএ কেন্দ্রীয় কমিটির মহাসচিব জি এম জাহাঙ্গীর কবির রানা,বিকেএ কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব জয়নুল আবেদীন জয়, চাঁদপুর সদর উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মানছুর আহমেদ,মুজিবুর রহমান, ইলিয়াছ হোসাইন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিকেএ চাঁদপুর জেলা শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ হারুনূর রশীদ, সহ-সভাপতি একেএম ফজলুল হক সেলিম, ফজলুল করিম বাসেদ,যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফয়েজুল হক,সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিবুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ নিয়াজ মোর্শেদ, শিক্ষা সচিব আইয়ুব খান, প্রচার সম্পাদক মোঃ হানিফ, দপ্তর সম্পাদক ফারহানা আক্তার, নির্বাহী সদস্য মাসুদ আলম,বাবুল দেসহ আমিনুল ইসলাম, মনিরুল ইসলাম, সুমন, মাওঃ আজিজুল হক।

অনুষ্ঠানে প্রশিক্ষক হিসেবে ছিলেন শামীম ( ইংরেজি ), আইয়ুব খান ( গনিত)।

অনুষ্ঠানে চাঁদপুর জেলার ৮০ টি স্কুলের প্রায় ২০০ জন শিক্ষক শিক্ষিকা অংশ নেয়।

একই রকম খবর