চাঁদপুর জেলা বিএনপির সম্মেলন সম্পন্ন

ইব্রাহিম খান : অনেকটা সুষ্ঠু সুন্দর ও শান্তিপূর্ন পরিবেশের মধ্যে দিয়ে সম্পন্ন হয়েছে চাঁদপুর জেলা বিএনপি’র দ্বি বার্ষিক সম্মেলন।

২ এপ্রিল শনিবার সকালে চাঁদপুর সদর উপজেলার বাগাদী ইউনিযয়নের নানুপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে দুই পর্বের এই সস্মেলনে প্রথম অধিবেশে সম্মেলনের উদ্বোধন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় হয় ও দ্বিতীয় অধিবেশনে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে তাদের পছন্দের প্রার্থীদের ভোট দেন ভোটাররা ।

প্রধান অতিথি হিসেবে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা আবুল খায়ের ভূঁইয়া। এসময় তিনি বলেন, আজকে দীর্ঘ ১৪ বছর আওয়ামীলীগ জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছে। এটি এদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন ছিল না।আজকে যারা মুক্তিযুদ্ধ ও ইতিহাসের কথা বলে তারাই এদেশে ইতিহাসকে বিকৃত করেছে।আজকে আওয়ামীলীগের প্রতিটি নেতাকর্মী দূর্নীতি গ্রস্ত।বাংলাদেশ ব্যাংক শেয়ার বাজার থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা লুট হয়েছে কিন্তু কারো বিচার হয়নি।অথচ একটি মিথ্যা সাজানো মামলায় তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে এই সরকার আটকে রেখেছে।

তিনি বলেন, আজকে দেশে কোন আইনের শাসন নাই।এদেশের জনগন ২০১৪,২০১৮ সালের নির্বাচন দেখেছে।আমরা আর হাসিনা সরকারের অধিনে কোন নির্বাচনে যাবো না। আন্দোলন সংগ্রামে করে আমাদের দাবী আদায় করতে হবে। এজন্য আজকের এই সম্মেলন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । আমরা চাই এই সম্মেলনের মধ্যে দিয়ে যেই নেতৃত্ব আসবে সেই নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে যেন চাঁদপুর বিএনপির ঘাটি হিসেবে পরিনত হয়।

সম্মেলনে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্যে রাখেন কুমিল্লা বিভাগীয় বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী মোস্তাক মিয়া। বিশেষ বক্তা হিসেবে বক্তব্যে রাখেন কুমিল্লা বিভাগীয় বিএনপি’র সহ সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুল হক সাইদ।

চাঁদপুর জেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক শেখ ফরিদ আহমেদ মানিকের সভাপতিত্বে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন,বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির প্রশিক্ষন বিষয়ক সম্পাদক সাবেক সাংসদ আলহাজ্ব রাশেদা বেগম হীরা, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা এম এ হান্নান, কেন্দ্রীয় তাতীদলের আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ ।

জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন খান বাবুল ও যুগ্ম আহ্বায়ক মুনির চৌধুরী, খলিল গাজীর যৌথ পরিচালনায় বক্তব্যে রাখেন, মতলব দক্ষিন উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শুক্কুর পাটওয়ারী, জেলা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. শীরিন সুলতানা মুক্তা,কচুয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি হুমায়ন কবির, হাইমচর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আমান উল্লাহ বেপারী, সাধারণ সম্পাদক মাজহারু ইসলাম সফিক, কচুয়া উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মুকবুল হোসেন, কচুয়া উপজেলা বিএনপি নেতা মঞ্জুরুল আলম সেলিম,ফরিদগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি শরীফ মোঃ ইউনূছ, ফরিদগঞ্জ পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন, ফরিদগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মুজিবর রহমান দুলাল, ফরিদগঞ্জ পৌর বিএনপির সভাপতি আমানত গাজী,

শাহরাস্তি পৌরসভার সাবেক মেয়র মোস্তফা কামাল, শাহরাস্তি পৌর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন, মতলব উত্তর উপজেলা বিএনপি নেতা কবির সরকার, চাঁদপুর শহর বিএনপির সভাপতি আক্তার হোসেন মাঝি,সাধারন সম্পাদক অ্যাড. হারুনূর রশীদ, সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি শাহজালাল মিশন,কচয়া উপজেলা বিএনপি নেতা শাহজালাল, হাজীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হোসেন মোল্লা, শাহরাস্তি পৌর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান, সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জাহাঙ্গীর হোসেন।

সম্মেলনের শুরুতে অতিথিবৃন্দ জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তলন ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্যে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন সম্মেলনের প্রধান অতিথি বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় দায়িত্ব প্রাপ্ত নেতা আবুল খায়ের ভূইয়াসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ।

সস্মেলনে ১৫১৫ জন ভোটারের মধ্যে ৯৯২ জন ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন জন ।সর্বোচ্চ ছাতা মার্কায় ৯২৭ ভোট পেয়ে সভাপতি নির্বাচিত হন শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক , সাধারণ সম্পাদক পদে এডভোকেট সলিম উল্ল্যাহ সেলিম মাছ মার্কায় ৮৯২ ভোট পেয়ে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

তবে পুরো সম্মেলনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সম্মেলনের সভাপতি প্রার্থী শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী অ্যাড. সলিম উল্যাহ সেলিম ব্যতিত বাকী ৫ প্রার্থীর এক জনকে দেখা যায় নি।এমনকি এসব প্রার্থীর কোন কর্মী সমর্থককেও সম্মেলনে উপস্থিত হতে দেখা যায় যায়নি।

 

একই রকম খবর