চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ বিদ্যুৎ সংযোগ স্থান পরিদর্শন না করেই আবেদন বাতিল !

চাঁদপুর খবর রিপোর্ট: চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর মাঠ পর্যায়ের স্টাফ কর্তৃক গ্রাহক হয়রানি অব্যাহত রয়েছে । সম্প্রতি ওয়ারিং পরিদর্শক মো: সোহেল রানা বিরুদ্ধে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রত্যাশী গ্রাহক হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে ।

শাহমাহমুদপুর ইউনিয়ন ও মৈশাদী ইউনিয়নের একাধিক বিদ্যুৎ সংযোগ প্রত্যাশি গ্রাহক দৈনিক চাঁদপুর খরবকে জানান, চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুত সমিতি-২ এর ওয়ারিং পরিদর্শক মো: সোহেল রানা বিদ্যুৎ সংযোগ প্রত্যাশী গ্রাহকদের বাড়িতে না গিয়ে ওয়ারিং পরিদর্শন না করেই গ্রাহকদের বিদ্যুৎ সংযোগের আবেদন বাতিল করেন।

খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায়, বিদ্যুৎ সংযোগ প্রত্যাশি গ্রাহকগণ অনলাইনে তাদের আবেদন পরীক্ষা করে ওয়ারিং পরিদর্শক সোহেল রানা, ওয়ারিং হয়নি মর্মে রিপোর্ট উপস্থাপন করে আবেদন গুলো বাতিল করে দেন। এতে গ্রাহকদের অর্থ ও সময় নষ্ট হয়। পুনরায় অফিসে গিয়ে তাকে অবহিত করা হলে, তিনি বলেন পুনরায় আবেদন করার জন্য।

এ ব্যাপারে শাহতলী গ্রামস্থ সোহাগ গাজী দৈনিক চাঁদপুর খবরকে জানান, চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ অধীন অনলাইনে মিটারের জন্য আবেদন করেছি । ওয়ারিংও করেছি । কিন্তুু দুঃথজনক হলো ওয়ারিং পরিদর্শক মো: সোহেল রানা সরজমিনে না এসে কিছু না বলে আমার আবেদনটি বাতিল করেছে । বিষয়টি আমি চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ জি এম এর সুদৃষ্টি কামনা করছি ।

ভুক্তভোগী গ্রাহক জানায়, আমাদের একটি বিদ্যুৎ সংযোগের আবেদন করতে যাতায়াত ভাড়া ও কম্পিউটারের দোকানের খরচসহ প্রায় ২শত ৫০টাকা খরচ হয়। এর জন্য বিভিন্ন কাগজপত্র সংগ্রহ করতে প্রচুর সময় ও অর্থ ব্যয় হয়। আমরা ওয়ারিং পরিদর্শক মো: সোহেল রানা কার নির্দেশে এই স্বেচ্ছাচারিতা করে বিদ্যূৎ সংযোগ প্রত্যাশি গ্রাহকদের হয়রানী করে তা জানতে চাই। এ ব্যাপারে চাঁদপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-২ এর জেনারেল ম্যানেজারের হস্তক্ষেপ কামনা করে সাধারন জনগন।

এ ব্যাপারে দৈনিক চাঁদপুর খবরের পক্ষ থেকে ওয়ারিং পরিদর্শক সোহেল রানাকে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক চাঁদপুর খবরকে জানান,শাহতলী জনৈক সোহাগ গাজীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সরজমিনে তদন্তে যেতে পারিনি ।আমি করোনায় আক্রান্ত ছিলাম । আমার ভূল হয়ে গেছে ।সরজমিনে না গিয়ে আবেদন বাতিল করা ঠিক হয়নি । এ জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি ।

একই রকম খবর