চান্দ্রায় কলেজ ছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে অবৈধ সংসার, দুই পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর সদর উপজেলার ১২ নং চান্দ্রা ইউনিয়নে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বখাটে যুবক শিপন বেপারী চাঁদপুর সরকারি কলেজ ছাত্রীকে এনে অবৈধভাবে সংসার করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

চান্দ্রা ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড দক্ষিণ বালিয়া গ্রামের কুদ্দুস শেখের মেয়েকে তুলে নিয়ে এ ঘটনা ঘটে। কুদ্দুস শেখের মেয়ে চাঁদপুর সরকারি কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের মেধাবী ছাত্রী। কলেজে আসা যাওয়ার পথে সিডু বেপারীর ছেলে বখাটে শিপন বেপারি তাকে উত্যক্ত করত।
মঙ্গলবার রাতে ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তার বাড়িতে এনে অবরুদ্ধ করে রাখে।

মেয়ের বাবা কুদ্দুস শেখ জানায়, ১৩নং ইউনিয়নের সাদুল্লাহপুর চরের নদী ভাংতি সিডু বেপারী এই দক্ষিণ বালিয়া গ্রামে এসে জায়গা কিনে বসতি করতে থাকে।

আমার মেয়েকে প্রলোভন দেখিয়ে জোর করে তুলে নিয়ে তাদের বাড়িতে আটকে রাখে। কম্পিউটারে তৈরি করা ভুয়া একটি স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর রেখে বিয়ে না করেই অবৈধভাবে সংসার করছে।

এই ঘটনার প্রতিবাদ করায় বখাটে যুবক মাদক সেবনকারী শিপন বেপারী ও তার ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের এনে অতর্কিতভাবে হামলা চালায়।এই ঘটনায় বাড়াবাড়ি ও থানায় অভিযোগ করলে জানে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেয়। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শিপন বেপারী জানান, উকিলের মাধ্যমে এফিডেভিট করে স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর রেখে দুজনের বিয়ে হয়েছে তবে কাজে দিয়ে হয়নি এবং কাবিন হয়নি। করোনার কারণে তা না করতে পারলেও পরবর্তীতে কাবিন করে নেব।

৯ নং ওয়ার্ড মেম্বার সিদ্দিকুর রহমান বেপারী দায়িত্ব নিয়েছেন এবং তিনি বলেছেন মেয়েকে ঘরে রাখার জন্য তার কথা মতোই মেয়েকে ঘরে রাখা হয়েছে। এদিকে দুজনের লিখিত স্ট্যাম্প দেখে অনেকে ধারণা করেছেন এটি সম্পূর্ণ ভুয়া কম্পিউটারে তৈরি করা শুধুমাত্র লোক দেখানোর জন্য তা তৈরি করেছে।

বিয়ে না করেই তারা অবৈধভাবে সংসার করছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন।একটি কলেজছাত্রী মেয়েকে তুলে নিয়ে ঘরের ভিতরে অবরুদ্ধ করার কারণে প্রতিবাদ করলে প্রতিপক্ষ বখাটে যুবক তার ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের নিয়ে এসে মেয়ের বাড়িতে অতর্কিতভাবে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। এই ঘটনায় অভিযুক্ত বখাটের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা যায়।

একই রকম খবর