চাল আত্মসাতের অভিযোগে কল্যানপুর চেয়ারম্যান রনির বিরুদ্ধে মামলা

চাঁদপুর খবর রির্পোট: মার্চ-এপ্রিল দুই মাস পদ্মা-মেঘনার অভয়াশ্রম এলাকায় জাটকা ধরা থেকে বিরত থাকেন জেলেরা। এ সময় জেলেদের খাদ্য সহায়তা হিসেবে ভিজিএফের চাল দেওয়া হয়।

ওই সময়ের বরাদ্দ ৪ টন চাল আত্মসাতের অভিযোগে চাঁদপুর সদরের কল্যাণপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন রনির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। পাশাপাশি এই ইউনিয়ন পরিষদের দুটি গোডাউন সিলগালা করে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

গতকাল ১৮মে (বুধবার) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সানজিদা শাহনাজের নির্দেশে গোডাউনগুলো সিলগালা করা হয়।

চাঁদপুর সদর উপজেলা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা ও বিতরণের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান বলেন, ওই ইউনিয়নের ৬শ ৭১ জন জেলেদের খাদ্যসহায়তায় চাল নির্দিষ্ট সময়ে বিতরণ করা হয়নি। বুধবার সকালে ইউনিয়নের দুটি গোডাউনে বরাদ্দ ৫৩.৬৮০ টন চালের মধ্যে ৪.১ টন কম পাওয়া যায়।

বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানালে তিনি গোডাউন দুটি সিলগালা করার নির্দেশ দেন। বরাদ্দকৃত চাল ৪০ কেজি করে দুই মাসে ৮০ কেজি প্রত্যেক নিবন্ধিত জেলের পাওয়ার কথা ছিল।

মিজানুর রহমান বলেন, এ পরিস্থিতিতে বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে।

এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা শাহনাজ জানান, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে বলে দিয়েছি গোডাউন সিলগালা করে দিতে এবং মামলা করতে।

কল্যানপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন রনি পাটোয়ারীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক চাঁদপুর খবরকে বলেন,আমি যড়ষন্ত্রের স্বীকার । চালের জায়গায় চাল আছে । আমি কোথাও চাল নেইনি । পরিষদের গোডাউনে সরকারি চাল মজুদ আছে ।

একই রকম খবর