ছাত্রলীগের দু-গ্রুপের পাল্টাপাল্টি কমিটির অনুমোদন নিয়ে কচুয়ায় উত্তেজনা

ইসমাইল হোসেন বিপ্লব,কচুয়া ॥ কচুয়া উপজেলার গোহট দক্ষিণ ইউনিয়ন ও শেখ মুজিবুর রহমান ডিগ্রি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের দু-গ্রুপের কমিটি ঘোষনা দেয়াকে কেন্দ্র করে কচুয়ায় টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মো. সালাহউদ্দিন সরকারসহ ৭ জন যুগ্ম আহবায়ক ১৬ জুলাই শনিবার শেখ মুজিবুর রহমান ডিগ্রি কলেজ শাখায় মেহেদী হাসান কাজীকে আহবায়ক ও শাহ পরান হোসেনকে যুগ্ম আহবায়ক এবং গোহট দক্ষিণ ইউনিয়নে মেহরাব হোসেন তারিফকে আহবায়ক ও মো. মোস্তাকিম মিরাজকে যুগ্ম আহবায়ক করে এ দুই শাখায় ছাত্রলীগের আহবায়ক কমিটির অনুমোদন দেয়।

এদিকে উপজেলা ছাত্রলীগের ১নং যুগ্ম আহবায়ক মো. সোহাগ উদ্দিন ও ৪ যুগ্ম আহবায়ক ১৭ জুলাই রবিবার শেখ মুজিবুর রহমান ডিগ্রি কলেজ শাখায় সবুজ হোসেনকে সভাপতি ও কাজী মো. নাসিমকে সাধারণ সম্পাদক এবং গোহট দক্ষিণ ইউনিয়নে হোসাইন উদ্দীনকে সভাপতি ও ফাবেল আহেমদকে সাধারণ সম্পাদক করে এ দুই শাখার ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন দেয়।
উভয় কমিটির অনুমোদন দেয়ার পর থেকে ছাত্রলীগের দু-গ্রুপের পাল্টাপাল্টি মিছিলে মিছিলে মুখোরিত হয় রহিমানগর বাজার এলাকা। ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন কর্মী ও স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এই দুই শাখার ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন দেয়াকে কেন্দ্র করে যেকোন সময় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে। এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

এদিকে ১৬ জুলাই শনিবার উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মো. সালাহউদ্দিন সরকারসহ ৭ জন যুগ্ম আহবায়কদের স্বাক্ষরিত উপজেলা ছাত্রলীগের পেডে উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক কমিটিতে যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে রাশেদ গাজীকে অন্তর্ভূক্ত করা হয়।

কমিটি গঠনের বিষয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মো. সালাহউদ্দিন সরকার বলেন, শেখ মুজিবুর রহমান ডিগ্রি কলেজ শাখা এবং গোহট দক্ষিণ ইউনিয়ন শাখা ছাত্রলীগের কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়কদের পরামর্শ নিয়ে ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী উভয় কমিটি বিলুপ্ত করে আহবায়ক কমিটি ঘোষনা দেয়া হয়।

উপজেলা ছাত্রলীগের ১নং যুগ্ম আহবায়ক মো. সোহাগ উদ্দিন বলেন, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মো. সালাহউদ্দিন সরকার আমার সাথে পরামর্শ না করে শেখ মুজিবুর রহমান ডিগ্রি কলেজ শাখা এবং গোহট দক্ষিণ ইউনিয়ন শাখা ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন দিয়েছে। তাই আমি গোহট দক্ষিণ ইউনিয়নের অধিবাসী হিসেবে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতাদের পরামর্শক্রমে ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আমি ও ৪ জন যুগ্ম আহবায়কসহ উভয় কমিটির অনুমোদন দিয়েছি।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালের ২৯ শে ফেব্রুয়ারি চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জহির উদ্দিন মিজি ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন খান স্বাক্ষরিত জেলা ছাত্রলীগের পেডে মো. সালাহউদ্দিন সরকারকে আহবায়ক ও মো. সোহাগ উদ্দিনকে ১নং যুগ্ম আহবায়ক করে ৩ মাসের জন্য ৪৬ সদস্য বিশিষ্ট কচুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়। প্রায় দুই বছর পেড়িয়ে গেলেও উপজেলা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত হয়নি।

এদিকে পাল্টপাল্টি কমিটি ঘোষনার বিষয়ে চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন খান বলেন, উভয়ে গটনতন্ত্র পরিপন্থি কাজ করে গোহট দক্ষিণ ইউনিয়ন ও শেখ মুজিবুর রহমান ডিগ্রি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন দিয়েছে।

তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। কচুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের ৩ মাসের আহবায়ক কমিটি দুই বছর পেড়িয়ে গেলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি কেন গঠন করা হয়নি সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অচিরেই সম্মেলনের মাধ্যমে উপজেলা ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে।

একই রকম খবর