ছোট সুন্দরে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে নির্মম নির্যাতন

স্টাফ রিপোর্টার ঃ চাঁদপুর সদর উপজেলার রামপুরের ছোট সুন্দরে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে মারধরের ঘটনায় স্বামী আল-আমিনকে আসামী করে ৪ জনের বিরুদ্ধে চাঁদপুর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছে বাদী নির্যাতিত স্ত্রী শাহতলী জিলানী চিশতী কলেজের প্রাক্তন ছাত্রী রেহেনা আক্তার । বাদী নির্যাতিত স্ত্রী রেহেনার বাড়ী ভরঙ্গাচর শাহ্তলী চাঁদপুর সদর ।

আসামীগণ হলেন : চাঁদপুর সদর উপজেলার ছোট সুন্দর এলাকার মো. নূরুল ইসলামের ছেলে ১ নং আসামী মো. আল-আমিন, ২ নং আসামী মো. সামছুল ইসলাম, ৩নং আসামী নাজমা বেগম ও ৪নং আসামী নাছিমা বেগম।

সর্বসাং ছোট সুন্দর, চাঁদপুর সদর। মামলার এজহার থেকে জানা যায়, মামলার আসামীগণ অত্যান্ত দুষ্ট, দূর্দান্ত, অত্যাচারী, পরবিত্ত লোভী ও যৌতুক লোভী। আসামীগণ আইন কানুন কোন কিছুই তোয়াক্কা করে না।

১নং আসামী আল-আমিন যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে মারধর করে ও শারিরিক নির্যাতন করে। ২নং আসামী নাজমা ১নং আসামীর বোন, ৩নং আসামীও ১নং আসামীর বোন, ৪নং আসামী ১নং আসামীর মা। স্বামী আল আমিনের সাথে গত ২৫-০২-২০১৯ তারিখে রেজিষ্ট্রিকৃত কাবিন নামার মাধ্যমে মুসলিম শরিয়তের বিধান মতে হাজেরানা মজলিসের উপস্থিতিতে ২ লাখ টাকা দেন মোহরানা ধার্য্যে বিবাহ হয়।

বিবাহের পর থেকে এ পর্যন্ত মোহরানা পরিশোধ করেনি। বিবাহের পর সকল আসামীগণ অন্যায় ভাবে চাপ দিয়ে স্ত্রীর পিতার কাছ থেকে ৩ লাখ টাকা হাওলাত বাবদ নেয়। এছাড়াও সকল আসামীগণ স্ত্রীর কাছ থেকে যৌতুক দাবি করে প্রায় মারধর করে। সকল আসামীগণ উদ্দেশ্যেমূলক ভাবে ভাতে, কাপড়ে কষ্ট দিয়ে আসছে। ১নং আসামী মো. আল-আমিন বিবাহের পণ্য হিসেবে ৫ লাখটাকা যৌতুক দাবি করে স্ত্রীকে মারধর করে। এ ঘটনায় স্ত্রী বাদী হয়ে চাঁদপুর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে চাঁদপুর মডেল থানার এসআই লোকমান দৈনিক চাঁদপুর খবরকে ছোটসুন্দর ঘটনাস্থল পরির্দশণ করেছি । ঘটনা সত্যতা পেয়েছি । এ ব্যাপারে পরবর্তী আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে ।

একই রকম খবর