জনগণের চোখে পদ্মা সেতু ও সরকারের উন্নয়ন–(তিন)

বিশেষ প্রতিনিধি : পদ্মা সেতু বাংলার অহংকার। সাহসের প্রতীক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তথা আওয়ামীলীগ সরকারের অনন্য অবদান। যা অনন্তকাল আওয়ামীলীগের উন্নয়নের নজির হিসেবে থাকবে। স্বপ্নের পদ্মা সেতু আজ বাস্তবে রুপ দেয়ায় “দৈনিক চাঁদপুর খবর” নাগরিকদের ধারাবাহিক অভিমত প্রকাশ করার উদ্যোগ নিয়েছে।

গতকাল (২৬ জুন) সন্ধ্যায় দৈনিক চাঁদপুর খবরকে অভিমত ব্যক্ত করেছেন, যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এম এ ওয়াদুদ ।

যা তুলে ধরা হলো ।

চাঁদপুর খবর ঃ কেমন আছেন?

এম এ ওয়াদুদ ঃ আল্লাহর অশেষ মেহেরবাণীতে এখন ভালো।

চাঁদপুর খরব ঃ স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন হয়েছে। আপনার অভিমত কি ?

এম এ ওয়াদুদ ঃ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ এ বিশাল সেতু নির্মাণ করার জন্য। বঙ্গবন্ধুর ডাকে আমরা যুদ্ধ করেছি আর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উদ্যোগে আমরা পদ্মা সেতু পেয়েছি। মহান মুক্তিযুদ্ধের পর এ আমাদের আরেকটি বিজয়। সকল বীর মুক্তিযোদ্ধারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে স্যালুট জানাই। আর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হয়েছে জমকালো। এক মাহেন্দক্ষন পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। আমি পুরো অনুষ্ঠানটি উপভোগ করেছি। এ যেন এক বিজয় উৎসব।

চাঁদপুর খবর ঃ পদ্মা সেতু উদ্বোধন নিয়ে দেশের সকল জেলায় একযোগে উৎসব অনুষ্টিত হয়েছে এ সম্পর্কে মন্তব্য কি?

এম এ ওয়াদুদ ঃ পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান যা আগামী প্রজন্ম দারুনভাবে উদযাপন করেছে। যারা মুক্তিযুদ্ধে বিজয় উল্লাস দেখেনি তারা পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের বিজয় উৎসব দেখেছে। এ টি থেকে ভবিষৎ প্রজন্মকে শিক্ষা নিতে হবে আমরা সব পারি। আমাদের ক্ষমতা অসীম।

চাঁদপুর খবর ঃ পদ্মা সেতু নির্মাণে যোগাযোগের ক্ষেত্রে কতটুকু অবদান রাখবে বলে আপনি মনে করেন?

এম এ ওয়াদুদ ঃ আমি মনে করি বাংলাদেশের যোগাযোগের ক্ষেত্রে এ সেতু বিশাল অবদান রাখবে। উত্তরাঞ্চলের সাথে দক্ষিনাঞ্চলের যোগাযোগে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। এ এক সেতুবন্ধন হবে দ’ুপাড়ের মানুষের মধ্যে।

চাঁদপুর খবর ঃ পদ্মা সেতু নির্মাণে কার অবদান ও ভূমিকা রয়েছে এ বিষয়ে আপনার বক্তব্য কি?

এম এ ওয়াদুদ ঃ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উছিলায়ই আজকের পদ্মা সেতু। তিনি উদ্যোগ না নিলে এ সেতু হতো না। তিনি আছে বলেই পদ্মা সেতুর জন্ম হয়েছে।

চাঁদপুর খবর ঃ পদ্মা সেতু দ্বারা বাংলাদেশের উন্নয়ন ও অর্থনৈতিকভাবে কেমন সুফল পাবে বলে মনে করেন।

এম এ ওয়াদুদ ঃ এতে দেশ আরো উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। পদ্মা সেতু নির্মানের সাহস কাজে লাগিয়ে এ দেশে আরো বড় বড়

প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে। অর্থনৈতিকভাবে এ দেশ আরো স্বয়ংসম্পূনতা অর্জন করবে।

চাঁদপুর খবর ঃ পদ্মা সেতুর রক্ষণাবেক্ষণে আমাদের করনীয় কি ?

এম এ ওয়াদুদ ঃ কুচক্রি মহল এ সেতুর পিছনে লেগে আছে। এই সেতুর ক্ষতি করতে পারে। সে দিকে নজর রাখতে হবে। সেতুর রক্ষণাবেক্ষণে প্রশাসন সর্বদা সতর্ক থাকতে হবে। দেশ স্বাধীন হয়েছে কিন্তু তা রক্ষা যেমনি ভাবে শেখ হাসিনা সরকার করেছে তেমনি ভাবে পদ্মা সেতুকেও রক্ষা করতে হবে। এতে আমাদের মুক্তিযোদ্ধারা প্রয়োজনে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলা করবে।

চাঁদপুর খবর ঃ পদ্মা সেতুর সৌন্দর্য্য অবলোকন করতে মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে কবে যাচ্ছেন ?

এম এ ওয়াদুদ ঃ মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে অবশ্যই যাবো। এটাও আমাদের স্বাধীনতার কারনেই হয়েছে। এ সেতুতে মুক্তিযোদ্ধাদের অবদান রয়েছে।

চাঁদপুর খবর ঃ যারা বলেছে পদ্মা সেতু হবে না। করা সম্ভব না, তাদের প্রতি আপনার প্রতিক্রিয়া কি ?

এম এ ওয়াদুদ ঃ কে কি বললো সেদিক বিবেচনা না করে সেতুর কাজ করা হয়েছে। যারা বিরোধীতা করেছে তাদের উপযুক্ত জবাব দিয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। তিনি অসম্ভবকে সম্ভব করেছে। উন্নয়ন বলতেই শেখ হাসিনা সরকারের পক্ষেই সম্ভব।

চাঁদপুর খবর ঃ সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

এম এ ওয়াদুদ ঃ আপনাকেও ধন্যবাদ। জয়বাংলা-জয় বঙ্গবন্ধু।

 

একই রকম খবর