আজ থেকে চাঁদপুরে ৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলা শুরু

আহম্মদ উল্যাহ : “উন্নয়নের অভিযাত্রায় অদ্যম বাংলাদেশ” এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে ধারণ করে চতুর্থ বারের মতো চাঁদপুর স্টেডিয়ামে আবারো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে উন্নয়ন মেলা-২০১৮।

৩ দিনব্যাপি মেলা শুরু হবে আজ ৪ অক্টোবর থেকে । চলবে ৬ অক্টোবর পর্যন্ত। বুধবার ৩ অক্টোবর চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের আয়োজনে চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের সাথে এক প্রেস বিফিং করেন চাঁদপুর জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান । উক্ত প্রেসবিফিংয়ে উন্নয়ন মেলার বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হয়েছে ।

উক্ত মেলা আজ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও চাঁদপুর-৩ (সদর-হাইমচর) আসনের সংসদ সদস্য ডা. দীপু মনি এমপি। সভাপতিত্ব করবেন চাঁদপুর জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ৪ অক্টোবর সকাল ১০টায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সব জেলা-উপজেলায় ‘উন্নয়ন মেলা-২০১৮’এর উদ্বোধন করবেন।

সমাপণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ত্রাণ মন্ত্রনালয় এর সচিব মো. শহ কামাল। এছাড়া চাঁদপুর স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত উন্নয়ন মেলায় সার্বক্ষণিক থাকবেন অতিরিক্ত ৩জন সচিব।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পূর্বে আজ বৃহস্পতিবার ৪ অক্টোবর সকাল ৯টায় চাঁদপুর স্টেডিয়াম থেকে র‌্যালি বের করা হবে। পরে সকাল ১০টায় উদ্বোধন, আলোচনা সভা।

এদিকে উন্নয়ন মেলা উপলক্ষে চাঁদপুর জেলা প্রশাসন ও সদর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে। চাঁদপুর স্টেডিয়ামে স্টল তৈরীর কাজ সমাপ্ত হয়েছে এবং সিসি ক্যামরা দ্বারা পর্যবেক্ষণ করা হবে। সে জন্যে সিসি ক্যামরা স্থাপন করা হয়েছে।

মেলায় বাচ্চাদের জন্যে খেলনার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে, ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প করা হবে এবং বিনামূল্যে ডায়াবেটিক পরীক্ষা ও চোখের দৃষ্টি শক্তি পরীক্ষা করা হবে, ফুট কর্ণার স্থাপন করা হবে। বানর নাছের মাধ্যমে উন্নয়ন মেলায় চিত্র তুলে ধরতে হবে।

চাঁদপুর সদরের প্রতিটি ইউনিয়ন থেকে ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে ৫ হাজার করে লোক উপস্থিত থাকার জন্যে অনুরোধ জানিয়েছেন চাঁদপুর জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খান। এছাড়া জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার নেতৃত্বে সদর উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী উপস্থিত থাকার জন্যে অনুরোধ জানিয়েছেন। এতে প্রায় লক্ষাধিক লোকের সমাগম ঘটবে।

গত বছর একযোগে দেশের ৬৪টি জেলায় অনুষ্ঠিত হয় উন্নয়ন মেলা। সরকারের উন্নয়ন কর্মকাÐ তুলে ধরতে “উন্নয়নের অভিযাত্রায় অদ্যম বাংলাদেশ” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এই মেলার আয়োজন করা হয়।

বর্তমান সরকারের সময় নেওয়া বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের সঙ্গে দেশের প্রান্তিক জনগণসহ আপামর জনগোষ্ঠীকে সম্পৃক্ত করার লক্ষ্যে এ উন্নয়ন মেলা।

গত বছর প্রথমবারের মতো ‘উন্নয়নের গণতন্ত্র, শেখ হাসিনার মূলমন্ত্র’ এই শ্লোগানকে ধারণ করে ২০২১ সালের মধ্যে ‘ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ’ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে ‘উন্নত বাংলাদেশ’ গঠনে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম জনসাধারণের সামনে তুলে ধরতে দেশজুড়ে উন্নয়ন মেলার আয়োজন করা হয়। রাজধানীতে ঢাকা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জাতীয় শিল্পকলা একাডেমিতে এ মেলার আয়োজন করা হয়।

এ মেলায় দেশের সব মন্ত্রণালয়, সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমানবাহিনী, পুলিশ, আনসার, অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পৃথক পৃথক স্টল ছিল। এতে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, দপ্তর, অধিদপ্তর, ব্যাংক, বিমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ ৮৮টি সরকার নিয়ন্ত্রণাধীন প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে। এসব সরকারি, আধা-সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার পক্ষ থেকে মেলায় আগত লোকদের সামনে তাদের নিজ নিজ সংস্থার উন্নয়ন কার্যক্রম তুলে ধরে। সরকারি সংস্থাগুলোর সেবাসমূহ মেলাস্থল থেকে সরাসরি প্রদান করে। এবারো এমন আয়োজন থাকবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

তিন দিনব্যাপী মেলায় থাকবে আলোচনা সভা। তাছাড়া সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমেও দেশের মুক্তিযুদ্ধ ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের নানা দিক তুলে ধরা হবে। দেশবরেণ্য শিল্পী-কলাকুশলীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান থাকবে মেলা চলাকালীন প্রতিদিন বিকেলে। আয়োজন করা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক কুইজ, আলোচনা, বিতর্ক ও রচনা প্রতিযোগিতা।

একই রকম খবর

Leave a Comment