ডাকাতিয়া নদী অবৈধ দখল উদ্ধারে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন

ফরিদগঞ্জ ব্যুরোঃ ফরিদগঞ্জে অবাধে ভাবে চলছে নদী দখলের মহাউৎসব চলছে। দখল উদ্ধারে জন্য ২৩শে জানুয়ারী সোমবার জেলা প্রশাসক, নির্বাহী প্রকৌশলী পানি উন্নয়ন বোর্ড, উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও অফিসার ইনর্চাজ বরাবর আবেদন করেন সচেতন নাগরিক। দ্রুক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি স্থানীয়দের।

আবেদন ও ঘটনার সূত্রে জানাযায়, উপজেলা ১০নং গোবিন্ধপুর দক্ষিন ইউনিয়নের পুরান রামপুর বাজারের ঐতিহ্যবাহী পানের হাট সংলগ্ন ডাকাতিয়া নদীতে অবৈধভাবে দখল করে বিলাস বহুল মার্কেট নির্মান করছেন প্রভাব শালী আব্বাছ আলী। পেশী শক্তি ও রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে ও স্থানীয় কিছু অসাধু চক্রের সহযোগিতায় কাজটি করেন বলে অভিযোগে রয়েছে। অভিযোগে আরো রয়েছে, জনৈক ছিঠু বেপারীর কাছ থেকে ৯ শতক জমি ক্রয় করে বাকি জমি ডাকাতিয়া নদী ভরাট করেই নির্মান করছেন এই বহুতল ভবন।

স্থানীয় লোকজন বলেন, রাজনৈতিক ছত্রছায়া ও পেশী শক্তি ব্যবহার করে এই বহুতল ভবন নির্মান করা হচ্ছে। স্থানী ভাবে অনেক বার অভিযোগ করা হলেও ব্যবস্থা নিচ্ছেনা প্রশাসন। সামনে ভূমি অফিস থাকলে নিরব ভূমিকা পালন করছে।

অভিযোগের বাদী জহিরুল ইসলাম স্বপন বলেন, প্রতি বছর এই নদী থেকে সরকার বিপুল পরিমান অর্থ রাজস্ব পাচ্ছে, উক্ত নদীটি জলমহল ইজারা ৫৪ একর চররামপুর মৌজায় অবস্থিত। নদী দখলের বিষয়ে বাঁধা দিলে উল্টো মামলা দিয়ে হয়রানি করবে বলে হুমকি দিয়ে আসছে। অবৈধ ভাবে নদী দখল রক্ষাতে আমি অভিযোগ করেছি।

আব্বাছ আলী বলেন, আমার ভবনে কোন পানি উন্নয়ন বোর্ডে কোন জমি নাই।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসলিমুন নেছা বলেন, আমি এখন কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

একই রকম খবর