ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির মর্যাদাপূর্ণ অবস্থান

টাইমস হায়ার এডুকেশন ইমপ্যাক্ট র‌্যাংকিং-২০২০ এর গুণগত শিক্ষায় (এসডিজি-৪) সারা বিশ্বের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে ৩৭তম স্থান অর্জন করেছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। এছাড়া এই বৈশ্বিক র‌্যাংকিংয়ে বিশ্বের শীর্ষ (৩০১-৪০০) বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে স্থান করে নিয়েছে বাংলাদেশের এই বিশ্ববিদ্যালয়।

গতকাল বুধবার (২২ এপ্রিল) টাইমস হায়ার এডুকেশন এর ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ২০২০ সালের ইউনিভার্সিটি ইম্প্যাক্ট র‌্যাংকিং এর তালিকায় দেখা যায়, এবারের গ্লোবাল র‌্যাংকিং এ বাংলাদেশের পাবলিক এবং প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় মিলিয়ে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির অবস্থান বিশ্বের শীর্ষ ৩০১-৪০০ বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে উঠে এসেছ্।ে একই গ্রুপে রয়েছে (৩০১-৪০০তম অবস্থান) ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়। একটি নবীন বিশ্ববিদ্যালয় (২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত) হিসেবে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির এ এক অনন্য অর্জন। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের একমাত্র বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে একইসাথে বিশ্বব্যাপী সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য ও স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় র‌্যাংকিংয়ের তিনটি প্রতিষ্ঠান টাইমস হায়ার এডুকেশন, কিউ এস এবং ইউ আই গ্রীনম্যাট্টিক্স এর বিচারে মর্যাদাপূর্ন অবস্থান লাভ করার গৌরব অর্জন করছে। জাতিসংঘ নির্ধারিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সারা পৃথিবীর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভূমিকার ভিত্তিতে টাইম হায়ার এডুকেশন এই র‌্যাংকিং তৈরি করে থাকে।
(লিংক:https://www.timeshighereducation.com/rankings/impact/2020/overall#!/page/0/length/25/locations/BD/sort_by/rank/sort_order/asc/cols/undefined)|

টাইমস হায়ার এডুকেশন (THE) হচ্ছে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত বিশ্বব্যাপী বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের মূল্যায়নকারী কর্তৃপক্ষ ও উচ্চশিক্ষার তথ্য প্রদানকারী শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠান। ’টাইমস হায়ার এডুকেশন (THE) ইউনিভার্সিটি ইম্প্যাক্ট র‌্যাংকিং ২০২০’ হচ্ছে জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বিশ্বব্যাপী বিশ্ববিদ্যালয় সমুহের গুরুত্বপূর্ন সামাজিক ও অর্থনৈতিক অবদানের উপর ভিত্তি করে বিশ্বসেরা বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের র‌্যাংকিংয়ের প্রথম পদক্ষেপ।

আর এ র‌্যাংকিং এ ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির মযার্দাপূর্ন অবস্থান শুধু ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনভিার্সিটির জন্য গৌরবোজ্জ্বল নয়, বাংলাদেশের জন্যও গৌরবের বিষয়। এ অবস্থান শুধু ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বৈশ্বিক প্রবর্তক হিসেবে শিক্ষা, গবেষণা ও জ্ঞান বিস্তারে জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের প্রতিশ্রুতি পূরনের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয় বরং বিশ্ববিদ্যালয়ের অভন্তরীন কর্মকান্ড পরিচালনার নিয়মিত চর্চা, কর্মপন্থা ও কার্যপ্রণালীর যথার্থতা প্রমানের মূর্ত প্রকাশও।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের স্কোপাস পাবলিকেশনের সংখ্যার ভিত্তিতে বাংলাদেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে শীর্ষ অবস্থান এবং সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে ৪র্থ স্থান অর্জন করেছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়টি কিউএস ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং (এশিয়া)-২০১৯ এ সম্মানজনক অবস্থান এবং ইউআই গ্রিনমেট্রিক ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‌্যাংকিং-২০১৯ এ টানা তৃতীয়বারের মতো শীর্ষস্থান অর্জন করেছে।

এইসব আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি প্রমাণ করে গুণগত শিক্ষা, লিঙ্গবৈষম্য দূরীকরণ, মানসম্মত গবেষণা এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিশ্চিতকরণে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি কতখানি দায়বদ্ধ।

একই রকম খবর