ঢাকা থেকে পালিয়ে আসা ৩ মাদ্রাসা শিক্ষার্থী চাঁদপুরে উদ্ধার

শওকত আলী ; চাঁদপুরে মাদ্রাসার পড়াশুনার চাপ সহ্য করতে না পেরে কাজের খুঁজে মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে ঠিকানা বিহীন যাত্রা শুরু করে ৩ শিক্ষার্থী। পালিয়ে আসা শিক্ষার্থীরা রাজধানীর কেরানীগঞ্জের কদমতলী এলাকার রজতুল উলুম কওমী মাদ্রাসার পড়ুয়া।

পালিয়ে আসা শিক্ষার্থীরা হলো: কেরানীগঞ্জ কদমতলী এলাকার আনিছুর রহমানের ছেলে জোবায়ের (১৬), একই এলাকার হাবিব সিকদারের ছেলে মোঃ ইয়ামিন (১৫) ও ঢাকা বাবুবাজার পোস্তগোলা এলাকার আব্দুল কাইয়ুম এর ছেলে মোহাম্মদউল্লা (১৪)।

গতকাল রোববার রাত ১০টার পরে চাঁদপুরের শহরের রেলওয়ে কোর্ট স্টেশন এলাকায় দীর্ঘ সময় এ তিন শিক্ষার্থীদের ঘুরাফেরা করতে দেখা যায়। ঘুরাফেড়া করতে দেখে চাঁদপুর হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট এর পরিচালক নুরুল ইসলাম রাজিবের খবরের ভিত্তিতে সদর মডেল মডেল থানার ওসির নির্দেশে এ এসআই জাহাঙ্গীর আলম সংঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে শিক্ষার্থীদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

পালিয়ে আসা শিক্ষার্থীরা জানান, মাদ্রাসার লেখাপড়ার চাপ সহ্য করতে না পেরে আমরা তিনজন গত শনিবার সকাল ৭টায় মাদ্রাসা খেকে বের হই। পরে সদরঘাট থেকে লঞ্চযোগে দুপুরে চাঁদপুর আসি। চাঁদপুরে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে রাতে শহরের বাইতুল আমিন মসজিদে ঘুমিয়ে পরি।

কেরানীগঞ্জের কদমতলী রজতুল উলুম কওমী মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সামছুদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, মাদ্রাসার ৩ ছাত্র গত শনিবার (৬ আগষ্ট) সকালে মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে যায়। অনেক খোঁজাখুঁজি পর তাদের না পেয়ে অবিভাবকদের অবগত করে কেরানীগঞ্জ থানায় একটি নিখোঁজ ডায়রি করি। গতকাল রাত ১০টার পর চাঁদপুর মডেল থানার ওসি ৩ ছাত্রকে পেয়েছেন বল আমাকে অবগত করেন। আমি নিখোঁজ ছাত্রদের অবিভাবকদের নিয়ে চাঁদপুরে আসছি।

এ বিষয়ে চাঁদপুর মডেল থানার ওসি আব্দুর রশিদ জানান, তিন মাদ্রাসা ছাত্রকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। পরে তাদের সাথে বলে পালিয়ে আসা ছাত্রদের অবিভাবক ও মাদ্রাসার অধ্যক্ষকে অবগত করা হয়েছে।

একই রকম খবর