মতলবে প্রাইভেটকার চাকায় পথচারীসহ আহত ২ : চালক আটক

মতলব দক্ষিণ প্রতিনিধি : মতলব দক্ষিণ উপজেলার মতলব-নারায়ণপুর বাইপাস সড়কে চলন্ত মাইক্রবাসের চাকায় পৃষ্ট হয়ে পথচারীসহ ২ জন গুরুতর আহত হয়েছে।

আহতরা হচ্ছে সুরুজ্জামান বেপারী (৫৫) ও কুদ্দুস প্রধানিয়া (৩৫)। উভয়ের বাড়ী ঢাকিরগাঁও। দু’জনের মধ্যে সুরুজ্জামান বেপারীর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে এবং অপরজনকে মতলব দক্ষিণ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। রবিবার রাত আনুমানিক ৮ টায় মতলব কাজলী সিনেমা হল সংলগ্ন বাইপাস সড়কে এ দূর্ঘটনাটি ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওইদিন রাতে বাইপাস সড়কের পাশে দোকানে চা-বিস্কুট খেয়ে সুরুজ্জামান নিজ বাড়ীতে ফেরার পথে চাঁদপুর থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী (এয়ারপোর্টের যাত্রী বহনকারী) প্রাইভেটকার বেপরোয়া গতিতে এসে তাকে ধাক্কা দেয়। এতে সে রাস্তায় ছিটকে পড়ে গেলে তার উপর দিয়েই প্রাইভেটকারটি চালিয়ে যায়। বাইপাস সড়কে থাকা কুদ্দুস প্রধান দেখতে পেয়ে দৌড়ে গিয়ে প্রাইভেটকারটি ধরার চেষ্টা করলে তাকেও ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। প্রাইভেটকার চাপায় আহতদেরকে রক্তাক্ত যখম অবস্থায় স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে সুরুজ্জামানকে চাঁদপুর ও কুদ্দুস প্রধানকে মতলব সরকারী হাসপাতালে নিয়ে যায়। সুরুজ্জামানের অবস্থা বেগতিক হওয়ায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। এদিকে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শওকত আলী বাদল ও স্থানীয় যুবক মোক্তার হোসেন মহিনসহ স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় নারায়ণপুর বাজার এলাকা থেকে ঘাতক প্রাইভেটকারসহ চালক মো. জাকির গাজী (৪৫) কে আটক করা হয়। পরে মতলব দক্ষিণ থানা পুলিশকে সংবাদ পেয়ে নারায়ণপুর থেকে গাড়ী চালক ও প্রাইভেটকারটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। চালকের বাড়ী পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা উপজেলার পাড়ডাকুয়া গ্রামে। আহত সুরুজ্জামানের মৃত্যু হয়েছে এমন গুজব ছড়িয়ে পরলে বিক্ষুব্দ এলাকাবাসী বাইপাস সড়কে টায়ার জালিয়ে এবং রাস্তার উপর গাছ ফেলে রাত সাড়ে ৮টা থেকে সাড়ে ৯টা পর্যন্ত সড়ক অবরোধ করে। এতে সড়কের দুইপাশে জানজটের সৃষ্টি হয় এবং জনগনের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। মতলব দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শাহিদুল ইসলাম সংবাদ পেয়ে থানার ইন্সেপেক্টর (তদন্ত) মো. ইব্রাহিম খলিলকে ঘটনাস্থলে যাওয়ার নির্দেশ দেন। তিনি ঘটনাস্থলে গেলে বিক্ষুব্দ এলাকাবাসীর দাবি করেন, দ্রæত সময়ের মধ্যে বাইপাস সড়কের গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি স্থানে স্প্রিট ব্রেকার ও ল্যাম্প পোস্ট দিতে হবে। পরে থানার ইন্সেপেক্টর (তদন্ত) মো. ইব্রাহিম খলিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে কথা বলেন এবং এলাকাবাসীর দাবি বাস্তবায়নের প্রতিশ্রæতি দিলে অবরোধ তুলে নেয়া হয়। আহত সুরুজ্জামানের ছেলে হেলাল উদ্দিন জানান, দুর্ঘনার পর থেকে এখন পর্যন্ত তার পিতার জ্ঞান ফিরেনি।

থানার ইন্সেপেক্টর (তদন্ত) মো. ইব্রাহিম খলিল বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার বিষয়ে আটক চালকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। গতকাল ১৭ সেপ্টেম্বর চাঁদপুর আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়।

একই রকম খবর

Leave a Comment