ফরিদগঞ্জে স্ত্রীর অত্যাচারে স্বামীর থানায় জিডি

মামুন হোসাইনঃ ফরিদগঞ্জ উপজেলা দক্ষিণ গোবিন্দপুর পশ্চিম লাড়ুয়া গ্রামে স্ত্রী ও মেয়ের অত্যাচারের অতিষ্ঠ হয়ে ফরিদগঞ্জ থানা সাধারণ ডায়েরি করেন মোহাম্মদ হারুন ভূঁইয়া বিবরণে জানা যায়, হারুন ভূঁইয়ার স্ত্রী রোকেয়া বেগমের নামে সম্পত্তি লিখে দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন, এতে হারুন ভূঁইয়া রাজি না হলে স্ত্রী রোকেয়া বেগম ও তার মেয়ে ইতি আক্তার, রেহানা বেগম ও ফারজানা মিলে হারুন ভূঁইয়ার সাথে অমানুষিক অত্যাচার করে আসতেছে। বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার সমঝোতা করার পরেও স্ত্রী রোকেয়া বেগম মানুষের কূ পরামর্শ নিয়ে বার- বার সংসারে সুখ শান্তি বিনাশ করেন।

এবিষয়ে হারুন ভূঁইয়া বলেন, আমার ১ম স্ত্রী রোকেয়া বেগম মিলে আমার ফুপাতো ভাইয়ের মৃত্যুর পরে তাদের সন্তান ও সম্পত্তির হেফাজত করার জন্য আমার ফুপাতো ভাইয়ের স্ত্রীকে বিবাহ করি।

বিগত সাত বছর ধরে মিলে মিশে থাকলেও হঠাৎ করে ১ম স্ত্রী রোকেয়া বেগম তার নামে জমি লেখে দিতে হবে বলে চাপ প্রয়োগ করে আসতেছে, তিনি আরো জানান,আমার মেয়ে ও তাদের জামাইদেরকে নিয়ে একযোগ হয়ে আমার উপর অমানুষিক অত্যাচার করেন, আমাকে নারী নির্যাতনের মামলা করে জেল খাটানোর ভয় দেখান, আমাকে বহিরাগত সন্ত্রাসী দিয়ে জীবননাশের হুমকি দেন,বর্তমানে আমার ২য় স্ত্রী ও আমার নাবালক ছেলে মোহাম্মদ জুনায়েদকে অপহরণ করার হুমকি স্বরুপ সহ জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে ফরিদগঞ্জ থানার সাধারন ডায়েরী করি,সাধারন ডায়েরী নং ৮১৫।

ফরিদগঞ্জ থানার তদন্ত ওসি মোঃ বাহার মিয়া সাধারন ড়ায়েরীর বিষয়টি সত্যতা নিশ্চিত করেন।

 

একই রকম খবর