বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.এ ওয়াদুদ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলে ভর্তি

চাঁদপুর খবর রির্পোট: চাঁদপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মহান মুক্তিযুদ্ধে রণাঙ্গনের অকুতোভয় সৈনিক যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.এ ওয়াদুদ গুরুতর অসুস্থ হয়ে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি রয়েছেন।

গত রবিবার (১৫ মে) তিনি বিএসএমএমইউতে ভর্তি হয়ে এখনো চিকিৎসাধীন আছেন।

জানাযায়, বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ ওয়াদুদ গত ১০মে ২০২২ইং চাঁদপুর জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় মিটিং চলাকালীন সময় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। পরে চাঁদপুর সদর হসপিটালে নিয়ে ভর্তি করানো হয়। পরে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় ১৫ মে ঢাকা পাঠানো হয়।

এখন রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) কেবিন ব্লকে চিকিৎসাধীন আছেন।
বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.এ ওয়াদুদ দীর্ঘদিন যাবত বার্ধক্য জনিত কারণে অসুস্থ অবস্থায় আছেন। তিনি চাঁদপুর ও দেশবাসীর কাছে তার আশু রোগমুক্তি ও সুস্থতার জন্য দোয়া চেয়েছেন।

এছাড়াও যারা খোঁজ খবর নিয়েছেন ও দোয়া করেছেন তাদের বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ ওয়াদুদ এবং তার পরিবারের পক্ষ থেকে অশেষ ধন্যবাদ কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

চাঁদপুরবাসী জানান, আমরা দেশের এই সূর্য সন্তানের জন্য দোয়া করি যাতে দ্রুত সুস্থ্য হয়ে তিনি আমাদের মাঝে ফিরে এসে জনগণের জন্য আবারো কাজ করতে পারেন।

মহান মুক্তিযুদ্ধে রণাঙ্গনের এক অকুতোভয় সৈনিক যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.এ ওয়াদুদ। পাক বাহিনীর মুখোমুখি হয়েছেন বহুবার, সম্মুখ সমরে লড়েছেন বিপুল বিক্রমে। চোখের সামনেই সহযোদ্ধাদের অনেকে শহীদ হয়েছেন। পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন। তিনিও বার বার আহত হয়েছেন, গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তারপরেও তিনি মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরেছেন ভাগ্যের সহায়তায়।

জীবনের পড়ন্ত বেলায় সেই যোদ্ধা এখন নানা রোগ-শোকে আক্রান্ত। ক’দিন আগে হারিয়েছেন প্রিয়তমা স্ত্রীকে। রাজনীতি আর পদ-পদবির মোহ ত্যাগ করে স্বাধীনতার পর থেকে আত্মনিয়োগ করেন ‘মানুষ গড়া’র কাজে। মুক্তিযুদ্ধের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসের গর্বিত অংশীদার যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.এ ওয়াদুদ। ক্লান্ত শরীরে এক আলাপে বলছিলেন- ‘এক জীবনে যা পেয়েছি, তাতে আমি আপ্লুত। বন্দুক হাতে দেশকে শত্রুমুক্ত করার লড়াইয়ের সৌভাগ্য হয়েছে আমার। দেশের এই সূর্যসন্তানের দ্রুত সুস্থতা কামনা করছি।

এম এ ওয়াদুদের ছোট ভাই মতলব উত্তর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ কুদ্দুছ এবং আরেক ছোট ভাই মতলব ১৩ নং ইসলামাবাদ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সাজেদুল হাসান বাবু (বাতেন) এবং তার ভাগিনা মো: আনফাল সরকার পমন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সম্পাদক।

 

একই রকম খবর