রোটারী ফাউন্ডেশন কর্তৃক মাহবুবুর রহমান সুমনের পুরস্কার লাভ

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর রোটারী ক্লাবের ডিরেক্টর (কমিউনিটি সার্ভিস) ও দৈনিক ইলশেপাড়ের প্রধান সম্পাদক রোটারিয়ান মাহবুবুর রহমান সুমন এমপিএইচএফ রোটারী ফাউন্ডেশন কর্তৃক পুরস্কৃত হয়েছেন।

২০১৭-১৮ রোটারী বর্ষে রোটারিয়ান মাহবুবুর রহমান সুমন রোটারী ফাউন্ডেশনে দ্রুততম সময়ে অনুদান প্রদান করায় তাকে পুরস্কৃত করা হয়। ২০১৭-১৮ রোটারী বর্ষে রোটারিয়ান মাহবুবুর রহমান সুমন রোটারী ফাউন্ডেশনে প্রথমে ১শ’ ডলার প্রদান করে আরএফএসএম, পরে ৯শ’ ডলার দিয়ে পিএইচএফ এবং আরো ১ হাজার ডলার দিয়ে এমপিএইচএফ হন। যারা ফলশ্রুতিতে রোটারী ফাউন্ডেশন কর্তৃক রোটারিয়ান মাহবুবুর রহমান সুমনকে ‘ডিস্ট্রিক্ট সার্ভিস অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করা হয়। যা’ রোটারী জেলা-৩২৮২, বাংলাদেশ এবং চাঁদপুরে অন্যতম।

সম্প্রতি চাঁদপুর রোটারী ক্লাবের একটি অনুষ্ঠানে রোটারিয়ান মাহবুবুর রহমান সুমনের হাতে ঐ পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। ক্লাব সভাপতি রোটারিয়ান অ্যাড. সাইয়েদুল ইসলাম বাবুর সভাপতিত্বে ও সচিব রোটারিয়ান খোরশেদ আলম পাটওয়ারী কাঞ্চনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে রোটারিয়ান মাহবুবুর রহমান সুমনের হাতে ক্লাবের সাবেক সভাপতি রোটারিয়ান জাহাঙ্গীর আখন্দ সেলিম, সাবেক সভাপতি রোটারিয়ান সুভাষ চন্দ্র রায়, সাবেক সভাপতি রোটারিয়ান ডা. একিউ রুহুল আমিন, সাবেক সভাপতি রোটারিয়ান তমাল কুমার ঘোষ, সাবেক সভাপতি রোটারিয়ান প্রফেসর জাকির হোসেন, সাবেক সভাপতি রোটারিয়ান কাজী শাহাদাত, নির্বাচিত সভাপতি (২০১৯-২০) রোটারিয়ান শেখ মো. মঞ্জুরুল কাদের সোহেল, রোটারিয়ান সহ-সভাপতি নাছির খান ও শাহেদুল হক মোর্শেদ ঐ পুরস্কার তুলে দেন।

এসময় ক্লাবের যুগ্ম-সচিব রোটারিয়ান অ্যাড. নজরুল ইসলাম খান ও রোটারিয়ান অ্যাড. পলাশ মজুমদার, ডিরেক্টর (ক্লাব সার্ভিস) রোটারিয়ান ডা. পিযূষ কান্তি বড়–য়া, ডিরেক্টর (ভোকেশনাল সার্ভিস) রোটারিয়ান উজ্জল হোসেন, ডিরেক্টর (ইন্টারন্যাশনাল সার্ভিস) রোটারিয়ান নাজিমুল ইসলাম এমিল, ডিরেক্টর (ইয়ুথ সার্ভিস) রোটারিয়ান রফিকুল ইসলাম, সার্জেন্ট-এট-আর্মস রোটারিয়ান গোপাল সাহা ও রোটারিয়ান সাব্বির আজম, সদস্য রোটারিয়ান অ্যাড. ইয়াসিন আরাফাত ইকরাম, রোটারিয়ান হাবিবুর রহমান পাটওয়ারী, রোটারিয়ান অ্যাড. শাহাদাত হোসেন, রোটারিয়ান সুমনের সহধর্মিণী রোটারী-অ্যান খোদেজা মাহবুব, ছেলে রোটারী লেট মুবতাসিম মাহবুব সুহান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে রোটারী জেলা-৩২৮২, বাংলাদেশের সদ্যসাবেক গভর্নর রোটারিয়ান প্রফেসর ড. মোহাম্মদ তৈয়ব চৌধুরী এমপিএইচএফ, বি, পিএইচএস সেপ্টেম্বর মাসে চাঁদপুর সফরকালে ক্লাব সভাপতি রোটারিয়ান অ্যাড. সাইয়েদুল ইসলাম বাবুর কাছে ঐ পুরস্কারটি হস্তান্তর করেন। রোটারী জেলা-৩২৮২, বাংলাদেশের সদ্যসাবেক লেফটেনেন্ট গভর্নর ও চাঁদপুর রোটারী ক্লাবের সাবেক সভাপতি রোটারিয়ান কাজী শাহাদাত বলেন, চাঁদপুর রোটারী ক্লাবের একজন সদস্যের এমন পুরস্কার পাওয়া সম্মানের বিষয়। দ্রুততম সময়ে রোটারিয়ান সুমন রোটারী ফাউন্ডেশনে অনুদান প্রদান করায় এ পুরস্কার প্রদান করা হয়।

এ ব্যাপারে আইপিডিজি রোটারিয়ান প্রফেসর ড. মোহাম্মদ তৈয়ব চৌধুরী’র সাথে যোগযোগ করলে তিনি বলেন, রোটারী ফাউন্ডেশন সমৃদ্ধ করতে যারা সেখানে অনুদান প্রদান করেছেন তাদের স্বীকৃতি দিতেই এই পুরস্কার। ২০১৭-১৮ রোটারী বর্ষে ব্যক্তি পর্যায়ে মাত্র দু’জন এই পুরস্কার লাভ করেছে। এর মধ্যে রোটারিয়ান মাহবুবুর রহমান সুমন এমপিএইচএফ অন্যতম। তিনি রোটারিয়ান সুমনের ব্যক্তি ও ক্লাব পর্যায়ে সাফল্য প্রত্যাশা করেন।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তর আর্থিক ফান্ড ‘রোটারী ফাউন্ডেশন’ ১৯১৭ সালে তৎকালীন রোটারী আন্তর্জাতিকের প্রেসিডেন্ট রোটারিয়ান আর্ক সি. ক্লাম্প গঠন করেন। এরপর থেকে গত শতবর্ষে সারা পৃথিবীর রোটারিয়ানদের অনুদানে রোটারী ফাউন্ডেশন বিশ্বের দরিদ্র ও অসহায় মানুষের সেবা করে আসছে। আর এই ফাউন্ডেশনে বিভিন্ন পর্যায়ে দানকারীদের বিভিন্নভাবে পদক দেয় রোটারী ইন্টারন্যাশনাল।

মাত্র ১ হাজার ডলার এই ফান্ডে জমা দিলে তাকে পিএইচএফ পদক দেয়া হয়। রোটারী ক্লাবের সাথে জড়িত নন এমন ব্যক্তিরাও ঐ ফান্ডে অনুদান দিতে পারেন। রোটারিয়ান নন যেমন রোটার‌্যাক্টর বা রোটারী ক্লাবের সাথে জড়িত নন এমন ব্যক্তিরাও ইতোমধ্যে ঐ ফান্ডে অনুদান প্রদান করেছেন। রোটারী আন্তর্জাতিক জেলা-৩২৮২ (বাংলাদেশ) এর ১৩৪টি ক্লাবের প্রায় ৪ হাজার রোটারিয়ানদের মধ্যে ৫ শতাধিক পিএইচএফ পদকপ্রাপ্ত রয়েছেন। এছাড়া ১শ’ ডলারে আরএফএসএম, ২ হাজার ডলারে এমপিএইচএফ, ১০ হাজার ডলারে এমডি এবং আড়াই লাখ ডলারে একেএস পদক দেয়া হয়।

জানা যায়, রোটারী ফাউন্ডেশনের ফান্ড থেকে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে অসহায়দের সহায়তা দেয়া হয়। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে- পৃথিবী থেকে পোলিও রোগ মুক্তকরণ। সারা পৃথিবীতে পোলিওমুক্তকরণে রোটারী ইন্টারন্যাশনাল প্রায় ৪৫ হাজার কোটি টাকা খরচ করেছে। এছাড়া আফ্রিকার বিভিন্ন দেশসহ তৃতীয় বিশ্বের অভাবগ্রস্ত দেশে বিভিন্ন প্রকল্প তৈরি করে ওই ফান্ড থেকে মানুষের সেবা করা হচ্ছে। এর মধ্যে বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানেও বৃহৎ প্রকল্পগুলোতে রোটারী ফাউন্ডেশন সহযোগিতা করে আসছে।

একই রকম খবর

Leave a Comment