চাঁদপুরে যক্ষ্মা সম্পর্কে মতবিনিময়

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : যক্ষ্মা রোগ সম্পর্কে ডায়াবেটিক রোগীদেরকে সচেতন করার উদ্দেশ্যে ২৪ সেপ্টেম্বর চাঁদপুর ডায়াবেটিক সমিতি হাসপাতাল অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষ্মা নিরোধ সমিতি (নাটাব) চাঁদপুর জেলা শাখার পক্ষ থেকে এক মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন নাটাব চাঁদপুর শাখার সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ হোসেন খান। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর বক্ষব্যাধি হাসপাতালের কনসালটেন্ট ডাঃ এম. এ. মান্নান এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন চাঁদপুর ডায়াবেটিক হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ খবির উদ্দিন।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, যক্ষ্মা একটি অতি প্রাচীন ঘাতক ব্যাধি। প্রতি বছর বাংলাদেশে এ রোগে বহু লোক মৃত্যুবরণ করে এবং হাজার হাজার লোক এ রোগে আক্রান্ত হয়। পূর্বে এ রোগের কোন চিকিৎসা ছিল না। কিন্তু বর্তমানে চিকিৎসা ও ওষধ বিনামূল্যে প্রদান করা হয়।

যক্ষ্মা সম্পর্কে এখনও অনেক সামাজিক কুসংস্কার রয়েছে। অনেকেই যক্ষ্মা বংশগত ও ছোঁয়াচে রোগ মনে করে। যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির পরিবারের সাথে সম্পর্ক রাখতে চায় না। সচেতনতার অভাবই এর প্রধান কারণ। ডায়াবেটিক রোগীরা অনেকেই যক্ষ্মা আক্রান্ত হয়। ডায়াবেটিক রোগীদের ডায়াবেটিক সম্পর্কে যেমন সচেতন হতে হবে তেমনি যক্ষ্মা সম্পর্কেও তাদের সচেতন হতে হবে। ডায়াবেটিক রোগীরা সাধারণত একটু দুর্বল বলে তাদেরকে সহজেই যক্ষ্মা আক্রমণ করতে পারে। যক্ষ্মা ও ডায়াবেটিক দুটিই মারাত্মক রোগ। সুতরাং এ দু’টি রোগ সম্পর্কে আমাদেরকে সচেতন থাকতে হবে।

সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ হোসেন খান বলেন, বাংলাদেশ জাতীয় য²া নিরোধ সমিতি (নাটাব) দেশের ঐতিহ্যবাহী বৃহত্তম জাতীয় স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান। যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণে নাটাব ১৯৪৮ সাল থেকে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে। নাটাব য²া রোগী সনাক্তকরণ ও এর প্রয়োজনীয় চিকিৎসার মাধ্যমে অনেক রোগীকে সচেতন করে তুলতে সক্ষম হয়েছে। সামাজিক কুসংস্কার, অজ্ঞতা, অবহেলা, অর্থনৈতিক সংকট ও তথ্যের অভাবে যক্ষ্মা রোগীরা চিকিৎসা কেন্দ্রে সঠিক সময়ে যায় না। চিকিৎসা নিলেও নিয়মিত ওষধ সেবন এবং পূর্ণসময়ব্যাপী চিকিৎসা করে না। জনগণকে যক্ষ্মা রোগ সম্পর্কে সচেতন করাই নাটাবের অন্যতম উদ্দেশ্য। তাই নাটাব বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনকে যক্ষ্মা সম্পর্কে সচেতন করার জন্য আলোচনা সভা, মতবিনিময় ও র‌্যালী করে আসছে। চাঁদপুরে এখনও চল্লিশ ভাগ যক্ষ্মা আক্রান্ত রোগীদের চিহ্নিত করা যাচ্ছে না। বিভিন্ন সামাজিক প্রতিবন্ধকতার কারণে তাদেরকে সচেতন করা যাচ্ছে না।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নাটাবের ঢাকা প্রতিনিধি বিচিত্র চন্দ্র দাস, অধ্যাপক আহছানুজ্জামান, ডায়াবেটিক সমিতির স্বাস্থ্য বিষয়ক কর্মকর্তা মোঃ জাকির হোসেন, ডায়াবেটিক সমিতির সমন্বয়কারী উজ্জ্বল হোসেন প্রমুখ।

সভায় ডায়াবেটিক সমিতির কর্মকর্তাসহ অনেক সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

একই রকম খবর

Leave a Comment