শাহ্তলী ডাকাতিয়া নদীতে ট্রলার ডুবে নিখোঁজ ১জন : আহত ৩০জন

চাঁদপুর খবর রিপোর্ট ঃ চাঁদপুর সদর উপজেলার শাহতলী কামিল মাদরাসার পশ্চিম পাশে এবং মৈশাদী ইউনিয়নের হামানকর্দ্দি গ্রামের মাঝামাঝি স্থানে ডাকাতিয়া নদীতে ট্রলার ডুবিতে ১জন নিখোঁজ এবং প্রায় ৩০ যাত্রী আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

গত ২১ফেব্রুয়ারী রাত ৯টায় বালুবাহি রাজমনি-৪ নামের একটি বলগেড জাহাজের ধাক্কায় হিন্দু সম্প্রদায়ের কনে যাত্রীবাহি ট্রলারটি শাহতলী বাজার ও মৈশাদী ইউনিয়নের হামানকর্দ্দি গ্রামের মাঝামাঝি স্থানে শাহতলী কামিল মাদরাসার পশ্চিম পাশে ডাকাতিয়া নদীতে ডুবে যায়।

এসময় দুর্ঘটনা কবলিত ট্রলারটির এক যাত্রী দৈনিক চাঁদপুর খবরকে জানান, আমরা কনে যাত্রী নিয়ে চাঁদপুর সদরের শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের পাইকদি দাসবাড়িতে খোকন দাসের ছেলে নির্বাস দাসের বিয়েতে ডাকাতিয়া নদী পথে রওয়া হই। শাহতলী নামকস্থানে আসলে রাজমনি-৪ নামের বালুবাহি বলগেড জাহাজ কনে যাত্রীবাহি ট্রলারটির মধ্যখান দিয়ে উঠিয়ে দেয়। এতে একজন নিখোঁজসহ প্রায় ৩০জন যাত্রী আহত হয়েছে।

খোজ নিয়ে জানা যায়, বালুবাহী রাজমনি-৪ ট্রলাটিতে কোন ধরনের বাতি বা সংকেত ছিলনা। আমাদের ট্রলারটিতে আঘাত করে বালুবাহি বলগেড জাহাজটি দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

এ ব্যাপারে চাঁদপুর নদী ফায়ার স্ট্রেশন ইনচার্জ সিদ্দিকুর রহমান দৈনিক চাঁদপুর খবরকে জানান, আমার নেতৃত্বে আমাদের সদস্যরা উদ্ধার অভিযানে নেমেছি। নিখোঁজের সন্ধান না পাওয়া পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান চলবে। কিন্তু এখনো নিখোঁজের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। দুর্ঘটনা কবলিত ট্রলারটির সন্ধান পেয়েছি। ট্রলারটি উঠানোর চেষ্টা করছি। আমাদের ধারনা নিখোজ মেয়েটি স্রোতে অন্য কোথাও ভেসে গেছে। আমরা চেষ্টা করছি নিখোজ মেয়েটিকে খুজে বের করতে।

এদিকে, ট্রলার দূর্ঘটনার দিন ২১ফেব্রুয়ারী রাত ১১টায় চাঁদপুর কোস্টগার্ডের একটি টিম নদীতে ট্রলার ডুবিতে নিখোঁজ মেয়েটি উদ্ধারের জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে। কিন্তু নিখোঁজ মেয়েটির কোন সন্ধ্যান পাওয়া যায়নি।

মেয়েটির পরিবারের এক সদস্য জানায়, ট্রলার দূর্ঘটায় নিখোঁজ মেয়েটি বাগাদী ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের সনজিৎ দাসের মেয়ে অরপিতা রানী দাস। বয়স আনুমানিক ৮বছর। সে কনের সাথে যাত্রী হয়ে রওনা হয়েছিল। আমরা আমাদের মেয়ে কে আর পাবনা , শুধু মেয়ের লাশটুকু পেতে চাই।

 

একই রকম খবর