চাঁদপুরে শিক্ষক ও সুপারভাইজারদের বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ

স্টাফ রিপোর্টার : জেলা উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো চাঁদপুর এর আয়োজনে চাঁদপুরে মৌলিক সাক্ষরতার প্রকল্প (৬৪ জেলা) শিক্ষক ও সুপারভাইজারদের ৫দিন ব্যাপি বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়ছে।

শনিবার সকাল ১০টায় চাঁদপুর সিটি কলেজ মিলনায়তনে এ প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করা হয়। চাঁদপুর মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্প (৬৪) জেলা) উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুারো নির্বাচিত ৬শ’ ১৫ জন শিক্ষক ও সুপারভাইজারদের ১ম পর্যায়ের ৩শ’ ৬৩ জনের প্রশিক্ষনের আয়োজন করা হয়।

সভাপতির বক্তব্যে সহকারী পরিচালক জেলা উপানুষ্ঠানিক শিক্ষ ব্যুরো এমএম সাইদুর রহমান বলেন, একটি সাক্ষর সমাজ এবং দক্ষ জনগোষ্ঠীর যে কোন রাষ্ট্রের , দেশ ও জাতির উন্নয়নের লক্ষ্যে পৌঁছে দেয়ার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখে তাই আমাদের দেশের নিরক্ষর ও শিক্ষা বঞ্চিত জনগোষ্ঠীকে শিক্ষার ওসাক্ষরঙ্গান সম্পূন্ন করে দক্ষ মানবসম্পদে তৈরি করা অপরিহার্য। অতীতের তুলনায় বর্তমানে আমাদের দেশ অন্যান্য দেশ থেকে খুব দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। দেশের মৌলিক শিক্ষার ভিত করতে বর্তমান সরকার সংকল্পবদ্ধ। আজ এই প্রশিক্ষনে যেই শিক্ষক ও সুপারভাইজার শিক্ষা নিচ্ছেন তারাই সঠিক প্রশিক্ষনের মাধ্যেমে নিরক্ষরদেরকে শিক্ষিত করে তুলবেন।

প্রধান অতিথি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ জামাল হোসেন বলেন, মানুষের মৌলিক অধিকার হলো শিক্ষা, আমাদের জীবনকে সুন্দরভাবে পরিচালনার জন্য শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। পৃথিবীতে সব কিছুর ভাগ হয়তো বা হয় কিন্তু শিক্ষার ভাগ কখনো হয় না। শিক্ষার মাধ্যমে ব্যাক্তির সৃজনশীলতার উন্মেষ ঘটে। শিক্ষা মানুষের বুদ্ধি বিকশিত করে তাকে মহা মানবসম্পদে রুপান্তরিত করে। ফলে মানুষ ব্যক্তি জীবনে, পারিবারিক জীবনে, সামাজিক জীবনে ও দেশের সার্বিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখে। প্রযুক্তি নির্ভর এই বিশ্বে সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে সাক্ষরতার কোন বিকল্প নেই। সাক্ষরতা বলতে আমরা কেবল মাত্র লিখতে, পড়তে ও গননা করতে পারা কে বুঝি। বর্তমান সরকার দীর্ঘ মেয়াদী ও টেকসই সকল পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন। তেমনি করে টেকসই উন্নয়নের ধারাবহিকতার জন্য প্রয়োজন সর্বাগ্রে মানব সম্পদ এর উন্নয়ন করা। কোন রাষ্ট্র বা দেশের বিপুল সংখ্যক মানুষকে নিরক্ষর রেখে স্থায়ী উন্নয়ণ সম্ভব নয়। আমাদের এই ছোট্ট আয়তনের দেশে প্রায় ১৬ কোটি মানুষের বসবাস, এরমধ্যে ১৫-৪৫ বছর বয়সের প্রায় ৩-৪ কোটি সংখ্যক নারী পুরুষ নিরক্ষর। এসকল নিরক্ষর মানুষদেরকে মৌলিক শিক্ষা প্রদান করতে না পারলে দেশের উন্নয়ন সম্ভব না। এখন সকল তথ্য সেবা ডিজিটাল পদ্ধতিতে পেয়ে থাকি। কিন্তু আজ যারা নিরক্ষতা নিয়ে বসে আছে তারা সরকারের সকল ডিজিটাল সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তার পাশাপাশি তারাই প্রতারনার জালে জড়িয়ে পড়ছে। আমাদের সরকার এই দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে পরিনত করছে। আমাদের দেশে আরো উন্নয়ন করতে হলে কাজ করতে হবে, থেমে থাকলে চলবে না আর বসে থাকলেও চলবে না । তাই জাতির গঠনের জন্য ও টেকসই উন্নয়নকে ধরে রাখতে হলে সর্ব জায়গায় সর্ব ক্ষেত্রে সাক্ষরতার আলো জ্বলিয়ে দিতে হবে।আর সেই আলোয় আলোকিত হয়ে দূর করবো আমাদের দেশের নিরক্ষতা।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন চাঁদপুর সদর উপজেলার প্রোগ্রাম অফিসার মৌলিক সাক্ষরতা প্রকল্প (৬৪ জেলা) উপআনুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো মোঃ আরিফ হোসেন। পবিত্র কোরআন থেকে তেলেওয়াত করেন মাহ্রদী হাছান সোহাগ। গীতা পাঠ করেন কৃষ্ণ পদ রায়। শিক্ষকদের মাঝে বক্তব্য রাখেন বিলকিছ আক্তার।

এছাড়াও বক্তব্য রাখেন, বেসরকারি সংস্থা সমাহার এরিয়া ম্যানেজার মোঃ জাকির হোসেন তালুকদার। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, চাঁদপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এ.কে.এম. সাইফুল হক, জেলা উপআনুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুারো অফিস সহকারী উত্তম কুমার চক্রবর্তী।

চাঁদপুর পৌরসভার সদস্য সচিব মোঃ মাসুদুর রহমান ও মোঃ শফিউল আজম (জাকির), তরপুরচন্ডি ইউনিয়নের সদস্য সচিব মোঃ নাছির উদ্দিন আকাশ, আশিকাটি ইউনিয়নের সদস্য সচিব মোঃ সাগার খান, হানারচর ইউনিয়নের সদস্য সচিব মোঃ মোস্তফা কামাল, ১২নং চান্দ্রা ইউনিয়নের সদস্য সচিব মেহেদী হাছান, ৪নং শাহমাহমুদপুর ইউনিয়নের সদস্য সচিব ইব্রাহীম খলিল, ৮নং বাগাদী ইউনিয়নের সদস্য সচীব মোঃ নূরে আলম (রিপন), ১০নং ল²িপুর ইউনিয়নের সদস্য সচিব মোঃ ওমর ফারুক সহ সকল শিক্ষক ও শিক্ষিকা।

একই রকম খবর

Leave a Comment