সংগ্রামী নারী পুরস্কারে ভূষিত হলেন শারমিন আক্তার জুঁই

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ ই-কর্মাস আয়োজিত উদ্যোক্তা সম্মাননা ও মিলনমেলাতে সারাদেশ থেকে ১০জন উদ্যোক্তাকে সম্মাননা দেওয়া হয়। সে উদ্যোক্তাদের মধ্যেই সংগ্রামী নারী পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছেন চাঁদপুরের চাঁদ মুখ লবি রহমান কুকিং ফাউন্ডেশন চাঁদপুর জেলা শাখার প্রেসিডেন্ট ও আমরা “বিজয়ী” সংগঠনের প্রেসিডেন্ট ও ফাউন্ডার শারমিন আক্তার জুঁই।

শনিবার (১৪ মে) হাজীগঞ্জ উপজেলার আনন্দ প্যালেসে দিনব্যাপী জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এ সম্মাননা পর্বের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে শারমিন আক্তার জুঁই এর পক্ষে তার অরগানাইজেশানের সদস্যরা (নীলা রহমান, আমেনা বারী মৌসুমী, সুরাইয়া সুরু, সোনিয়া রহমান, আজমা আক্তার, বাম্পী রায়, মিতালি মিতি, ফাতেমা নিশি, সুমু আহমেদ, রায়ানা কায়সার,নীরব আহমেদ,) তার সম্মাননা স্মারকটি গ্রহণ করেন।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় শারমিন আক্তার জুঁই মুঠোফোনে জানান, আমি খুবই আনন্দিত সংগ্রামী নারী ক্যাটাগরীতে নির্বাচিত হয়ে। আমি চাঁদপুরের উদ্যোক্তাদের নিয়ে কাজ করি, তাদের স্কিল ডেভোলাপমেন্ট ও অফলাইন প্ল্যাটফর্মে ব্যবসা প্রতিষ্ঠিত করে দেয়াই আমার লক্ষ্য। আমি চাই আমার জেলার মেয়েরা সকল দিকেই দক্ষ থাকুক, সেসকল কোর্সগুলো তারা চাইলেও করতে পারেনা তাদের জন্য সে সকল কোর্সগুলো অনলাইনের মাধ্যমে চালু করেছি, ইনশাআল্লাহ অফলাইন ট্রেনিং ও চালু হতে যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, ২০২২ সালে এই ট্রেনিং অরগানাইজেশানটি শুরু করেন নারী উদ্যমী মেলা থেকে, সে মেলায় জু্ঁই ২টি স্টল কিনে ১০জন নারী উদ্যোক্তাদের তাদের অনলাইন বিজনেজকে অফলাইন বিজনেজে সামনে আনার জন্য এবং তা ব্যাপক সাড়া ফেলে। তার অরগানাইজেশান এর কার্যক্রমের সুনামের জন্য অল্প সময়েই দুই হাজার নারী উদ্যোক্তা তার সাথে যুক্ত হোন এবং ৩০০ নারীকে তিনি অনলাইন এবং অফলাইনে ট্রেনিং দিতে সক্ষম হোন। কালো সোনালি উদীওমান নারীর প্রতীক নিয়েই এই অরগানাইজেশান এর স্লোগান,” আমরা নারী, আমরা পারি, আমরা বিজয়ী”।

তিনি একাধারে ৮টি অনলাইন স্কিল ডেভেলপমেন্ট কোর্স করান তিনি অভিজ্ঞ ট্রেইনার দ্বারা। তিনি একাধারে একজন রন্ধনশিল্পী, তিনি প্রথম পিঠা প্রতিযোগিতার মধ্যে দিয়ে তার কার্যক্রম শুরু করেন। মূলত আমরা “বিজয়ী” একটি ট্রেনিং অরগানাইজেশান, এই নামে সারাদেশে আর দ্বিতীয় অরগানাইজেশান নেই।

একই রকম খবর