মতলব ডিগ্রি কলেজ সরকারি হওয়ায় স্মৃতিফলক উন্মোচন

মতলব দক্ষিণ প্রতিনিধি: মতলব ডিগ্রি কলেজ সরকারি হওয়ায় কলেজের আয়োজনে গত ২২ সেপ্টেম্বর দুপুর বারোটায় কলেজ ক্যাম্পাসে স্মৃতিফলক উন্মোচন, আনন্দ শোভাযাত্রা, আলোচনাসভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া এমপি।

তিনি বক্তব্যে বলেন, একটি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সরকারি হলে যেমন তার সম্মান বেড়ে যায় তেমনি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। সেই মর্যাদা ধরে রাখতে হলে পড়ালেখা গুনগত মান বৃদ্ধি করতে হবে। পড়ালেখার মান যদি ভালো না হয়, কলেজ সরকারি হওয়া আরও না হওয়ার মধ্যে কোনো তফাৎ নেই। একজন শিক্ষক বলতে পারবে আমি মতলব সরকারি ডিগ্রি কলেজের শিক্ষক এবং ছাত্র বলতে পারবে আমি মতলব সরকারি ডিগ্রি কলেজের একজন ছাত্র। সরাকর যেহেতু এ কলেজটিকে সরকারি করে আপনাদের মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছে, তা রক্ষা করার দায়-দায়িত্ব আপনাদেরই। তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনা সরকার আমলে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ শিক্ষা বিভাগের ব্যাপক উন্নয়ণ হয়েছে। যা বিগত কোন সরকার করতে পারে নি। তাই আগামী ডিসেম্বর মাসে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ণের ধারা অব্যাহত রাখতে বারবার নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে ক্ষমতায় আনতে হবে। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে দেশ এগিয়ে যাবে, দেশের মান মর্যাদা বিশ্বের দরবারে বৃদ্ধি পাবে। পেট ভরে খাবে, কোনো অভাব হবে না। গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে। তাহলে দেশটিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবো।

মতলব সরকারি ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. আবুল কালাম আল আজাদের সভাপতিত্বে ও কলেজের ইংরেজি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক কবি মুহাম্মদ জাকির হোসেনের উপস্থাপনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অত্র কলেজের সদ্য বিলুপ্ত গভর্নিং বডির সাবেক সভাপতি বিশিষ্ট আইনজীবি এ্যাডভোকেট রুহুল আমিন, বিএনসিসির রেজিমেন্ট কমান্ডার লে. কর্ণেল মো. সালাউদ্দিন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শাহিদুল ইসলাম, উপজেলা আ. লীগের সভাপতি এ এইচ এম গিয়াস উদ্দিন, মতলব উত্তর উপজেলা আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ কুদ্দুস, মতলব দক্ষিণ উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক বিএইচ কবির আহম্মেদ, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সিরাজুল মোস্তফা তালুকদার, মতলব পৌরসভার মেয়র আওলাদ হোসেন লিটন।

অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কলেজ গভর্নিং বডির সাবেক সদস্য ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মো. জহির সরকার, ভূগোল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জিএম হাবিব খান, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক ও জেলা পরিষদের সদস্য আল-আমিন ফরাজী, সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক হোসাইন মো. কচি, জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আশ্রাফুল ইসলাম সোহাগ, মো. পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি কাইয়ুম ফরাজী, সাধারণ সম্পাদক, শরিফ পাটোয়ারী, মতলব সরকারি ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আফসান চৌধুরী রণি, সাধারণ সম্পাদক আল-আমিন দেওয়ান কলেজ ছাত্র তানভীর তুষার। আলোচনা শেষে মিলাদ ও দোয়া পরিচালনা এবং পবিত্র কোরআন তেলওয়াত করেন কলেজের ইসলামী শিক্ষা বিভাগের প্রভাষক মাওলানা জাকির হোসেন, গীতাপাঠ করেন কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক কৃপা রানী পাল।

আলোচনাসভার পূর্বে কলেজ ক্যাম্পাস থেকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রমের নেতৃত্বে আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়ে মতলব শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় কলেজ ক্যাম্পাসে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রা শেষে স্মৃতিফলক উন্মোচন করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম এমপি।

পরে বিএনসিসির একটি চৌকষ দল ত্রাণমন্ত্রীকে গার্ড অব অনার প্রদান করে এবং তিনি বিএনসিসির পরিদর্শণ বইয়ে স্বাক্ষর করেন। এদিকে আলোচনাসভার পূর্বে প্রধান অতিথিসহ বিশেষ অতিথিবৃন্দদেরকে ক্রেষ্ট উপহার এবং ফুলের তোড়া দিয়ে বরণ করে নেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. আবুল কালাম আল আজাদ, ইংরেজি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক মো. কাওসার রসিদ, উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মো. জসিম উদ্দিন ও প্রভাষক তৌহিদুল আলম (ইমু) এবং সমাজকর্ম বিভাগের প্রভাষক হাকিকা আক্তার।

উক্ত অনুষ্ঠানে সামাজিক, রাজনৈতিক, শিক্ষক-শিক্ষিকা, শিক্ষার্থী, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

একই রকম খবর

Leave a Comment