হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদে ঈদের ৩ টি জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে

আবদুল গনি : পবিত্র ঈদুল আযহা আসন্ন । বৈর্শ্বিক করোনা পরিস্থিতিতে দেশের কোনো ঈদগাহে ঈদের জামাত হবে না। তবে সংশ্লিস্ট কমিটির সবার সিদ্ধান্ত মতে কোনো এক ফাঁকা স্থানেও জামাযাত করা যাবে। স্বাস্থ্যবিথি মেনে এ উদ্যোগ নিতে হবে। মসজিদ কমিটির সিদ্ধান্ত মতে নামাজের টাইম টেবিলও নির্ধারণ করবে ।

এবার চাঁদপুর জেলার সর্ববৃহৎ, প্রাচীন ও ঐতিহাসিক হাজীগঞ্জ বড় জামে মসজিদে বিশেষ ব্যবস্থায় ঈদুল আযহার ৩টি জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এতে নেয়া হয়েছে ধর্মমন্ত্রণালয়ের নিদের্শিত বিশেষ ব্যবস্থাসমূহ ।
ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশিত ঈদুল আযহার নামাজ আদায়ে প্রয়োজনীয় সব রকম ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ কমিটি । প্রথমটি হবে সকাল সাড়ে ৬ টায়, দ্বিতীয়টি হবে সকাল ৮টায় এবং তৃতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হবে বেলা ১০ টায় ।

তা’ছাড়াও বিশেষ ট্রাফিক ব্যবস্থা, আইন-শৃংখলা রক্ষায় হাজীগঞ্জ পৌরসভা,থানা পুলিশ ও প্রায় শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক থাকবে ।

চাঁদপুরের ঐতিহাসিক হাজীগঞ্জ বড় জামে মসজিদে বিশেষ ব্যবস্থাগ্রহণ সম্পর্কে মসজিদ ব্যবস্থাপনা কমিটির পক্ষে জানানো হয়,ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশিত বর্তমান বৈশ্বিক করোনা সংকটের কারণে বিশেষ ব্যবস্থায় মুসল্লিদের নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা থাকবে ।

মসুল্রিগণ প্রথমেই স্প্রে’র মাধ্যমে মসজিদের ভেতরে প্রবেশ করা,সাবান দিয়ে হাত ধৌত বা ওজু করে মসজিদে প্রবেশ করার ব্যবস্থা,সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কাতারবিান্দ হওয়া ও বাধ্যতামূলক মাক্স ব্যবহার করা।

গত ১৬ জুলাই শুক্রবার জুমা নামাজ আদায় শেষে মসজিদের পেশ ইমাম মুফতি মো.আবদুর রউফ এ ঘোষণা দেন।

জানা যায়,মুসল্লিদের ওজুর জন্য পর্যাপ্ত পানি,সাবান,বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ও নিরাপত্তার জন্য হাজিগঞ্জ থানা পুলিশের সার্বিক সহায়তা কামনা ও পৌরসভার সহযোগিতা কামনা করা হয়েছে ।’
নামাজের সময় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিত রাখার বিষয়ে এরইমধ্যে তিনি পল্লীবিদ্যুৎ বিভাগ হাজীগঞ্জকে এবং পৌর সভার সংশ্লিষ্ঠদের সহায়তা প্রদানের অনুরোধ জানা গেছে ।

প্রসঙ্গত, হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদ কর্তৃপক্ষ ঈদের নামাজ আদায়ে মুসল্লিদের স্বার্থে প্রতিবছরই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে আসছে। গৃহীত ব্যবস্থার মধ্যে রয়েছে প্রশাসনিক কর্মকর্তা,পৌর মেয়র,চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য জনপ্রতিনিধি ও ব্যবসায়ী গণ্যমান্য ব্যক্তিদের আমন্ত্রণ, নিরাপত্তার জন্য পর্যাপ্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতি নিশ্চিতকরণ,পরিবেশ সৃষ্টি,পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ, মসজিদ আঙিনায় সামিয়ানা টানানো, মেডিক্যাল টীম, প্রয়োজনীয় স্বেচ্ছাসেবকদল গঠন, হাজীগঞ্জ বাজারের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কুমিল্লা মহাসড়কে নির্ধারিত সময় পর্যন্ত যানবাহন নিয়ন্ত্রণে ট্রাফিক ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

নামাজ আদায়ের জন্যে মসজিদ কর্তৃপক্ষ সুন্দর ও সুষ্ঠ পরিবেশ বজায় রাখতে সবরকম ব্যবস্থা নিয়ে থাকে। সংশিষ্ট সকলের দায়িত্ব বন্টন করা হয় ।
ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক সংবাদ বলা হয়,সারা দেশে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে ঈদুল আযহার নামাজের ব্যবস্ধা গ্রহণ করতে হবে। ।

 

একই রকম খবর