হানারচরে সংখ্যালঘু প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষনের চেষ্টা !

স্টাফ রির্পোটার : চাঁদপুর সদর উপজেলা হানারচর ইউনিয়নে ৭নং ওয়ার্ড দঃ গোবিন্দীয়া গ্রামে ১০ টাকার লোভ দেখিয়ে সংখ্যালঘু এক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষন করার চেষ্টা করে। রবিবার দুপুরে দক্ষিণ গোবিন্দা গ্রামে সংখ্যালঘু বাড়িতে প্রবেশ করে বখাটে চান্দু বেপারী ১৫ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে।

ঘটনাটি জানতে পেরে তাৎক্ষণিক চাঁদপুরের মডেল থানার এসআই হেলাল সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে লম্পট চান্দু বেপারী বাড়িতে অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে অভিযুক্ত লম্পট চান্দু এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়।

প্রতিবন্ধী সংখ্যালঘু কিশোরীর মা জানায়,আমরা হিন্দু।তাহলে আমরা কি মানুষ না। অসহায় গরিব ও সংখ্যালঘু বলে পাশের এলাকার লম্পট চান্দু বেপারী দুপুরে ঘরের ভিতরে প্রবেশ করে প্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা করে।আমার ১ছেলে ২ মেয়ে, ৩ সন্তানই প্রতিবন্ধী। পাশের বাড়ির চান্দু বেপারী নামে এক বখাটে লম্পট মাদক সেবন কারী সে আমার প্রতিবন্ধী মেয়েকে ঘরে একা পেয়ে ১০ টাকা লোভ দেখিয়ে সর্বনাশ করার চেষ্টা কালে অন্য ঘরে থাকা এক মহিলা – বখাটে চান্দুর কথার আওয়াজ পেয়ে দৌড়ে গিয়ে দেখে প্রতিবন্ধী মেয়েকে ঝাপটি দিয়ে ধরে রাখছে।আমি ডাক চিৎকার করলে সবাই এগিয়ে আসলে তাকে ধরে ইউপি সদস্য কালু চৌকিদার কে খবর দিলে তাৎক্ষনিক এসে চান্দুকে জিঙ্গাসা করলে কিছু না বলেই ঘটনা স্থল থেকেই দৌড়ে পালিয়ে যায়।

এসময় ইউপি সদস্য কালু চৌকিদার সদর মডেল থানাকে অবহিত করলে পুলিশ আসার কথা শুনে লম্পট চান্দু বেপারী এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়।

স্থানীয়রা বলেন,চান্দু বেপারী একজন মাদক সেবন কারী। সে খায় এবং বিক্রি করে।এসব নেশা করে পূর্বে অনেক মহিলার ইজ্জত লুটে নেয়। তাঁর ঘরে স্ত্রী ও ২টি সন্তান আছে। চান্দু বেপারী খারাপ প্রকৃতির লোক কখন কোনটা করে বলা যায়না। প্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা করার ঘটনায় লম্পট চান্দু বেপারীর সর্বোচ্ছ শাস্তি ও বিচার জানায়।

একই রকম খবর