হোম কোয়ারেন্টাইনের ৫০ জন নৌ-পুলিশ একটি লঞ্চ নিয়ে মতলবে, আতঙ্কিত এলাকাবাসী

মতলব উত্তর  সংবাদদাতা : চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার, কালীপুর বাজারে গত ২ মে রোজ শনিবার ১ টি লঞ্চ প্রায় ৫০ জন যাত্রী নিয়ে লঞ্চঘাটে নোঙ্গর করে।

স্থায়ী লোকজন ও বাজারের দোকানদারদের সন্দেহ হলে তারা বাজার কমিটি, ষাটনল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে অবহিত করেন। তখন তারা  লঞ্চে আহরিত যাত্রীদের কাছে জানতে পারে তারা নৌপুলিশের চাকরি করে। তাদেরকে করোনা ভাইরাসের কারণে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে।

গত শনিবার একটি লঞ্চ ৫০ জন যাত্রি নিয়ে নোঙর করে উত্তর মতলবে। তারা সবাই নৌপুলিশের সদস্য। জানা যায়, তাদের হোম কোয়ারাইন্টিনে থাকার কথা। তাদের এই অতর্কিত অবস্থানের কারনে  বাজার কমিটি, ষাটনল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এ কে এম শরিফ উল্লাহ সরকার এবং মতলব উত্তর উপজেলা কমিউনিটিং পুলিশের সভাপতি  আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী মতলব সার্কেল এ এস পি আহসান হাবিব ও মতলব উত্তর অফিসার ইনচার্জ নাসির উদ্দিন মৃধা কে বিষয়টি অবহিত করলে তারা ঘটনাস্থলে রাত ৮ ঘটিকার সময় আসেন। লঞ্চে আহরিত লোকজনের সাথে এবং উর্ধতন কর্মকর্তার সাথে কথা বলে দুই দিনের থাকার অনুমতি প্রদান করেন। বাজারের লোকজনদেরকে বলে যান, দুইদিনের মধ্যে লঞ্চ চলে যাবে।

কিন্তু আজ চারদিন অতিবাহিত হতে যাচ্ছে লঞ্চ এখনো যায় নাই। বাজারের দোকানদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বাজারে একটি মাত্র ঘাট যেখানে বাজারের দোকারদাররা নিয়মিত গোসল, অজু ও অন্যান্য কাজ করে থাকে, কিন্তু লঞ্চ আসার পরে তারা এখন আর ঘাটটি ব্যবহার করতে পারছেনা। লঞ্চের লোকজনের মলমূত্রাদি বাজারের পাশে এসে জমা হচ্ছে এতে মারাত্মক ভাবে বাজারের লোকজনের স্বাস্থ্যযুকিতে আছে।

এমতাবস্থায় এলাকাবাসীর দাবি মতলব উত্তর উপজেলা প্রশাসনের প্রতি লঞ্চটি যেন বাজারের ঘাট থেকে অন্যত্রে চলে যাওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

এ ব্যাপারে উত্তর মতলবের উপজেলা নির্বাহীর সাথে কথা বললে তিনি জানান, “থানা থেকে অফিশিয়ালি আমার সাথে কেউ যোগাযোগ করেনি, তবে কমিউনিটি পুলিশের একজন সদস্য ফোনে আমাকে বিষয়টি জানান”।

 

একই রকম খবর