৬নং মৈশাদী ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান মানিকের কৃতজ্ঞতা

চাঁদপুর খবর রিপোর্ট : করোনাকালীন সময়ে ঝুঁকি নিয়ে সামাজিক কাজ করতে গিয়ে চাঁদপুর সদর উপজেলার ৬নং মৈশাদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মানিক শারিরীকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

এ নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার দৈনিক চাঁদপুর খবর পত্রিকার পক্ষ থেকেও দোয়া চাওয়া হয়েছে। বর্তমানে তিনি কিছুটা সুস্থ আছেন। এ জন্য তিনি তার ফেসবুক আইডি থেকে স্ট্যাটার্সে ইউনিয়নবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

ফেসবুক স্ট্যাটার্সে তিনি উল্লেখ্য করেন, “আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করছি ও আমার প্রিয় ইউনিয়ন বাসীর কাছে কৃতজ্ঞতা জানাই। আমি অনেকটা সুস্থ।

গত ২৪ ঘন্টার মধ্যে কোন জ্বর আসেনি। আমার অসুস্থতার কথা শুনে আমার খোঁজ খবর নেওয়ার জন্য শত শত ফোন আসে, আমি বিনয়ের সাথে দুঃখ প্রকাশ করছি অসুস্থতার কারণে কিছু সময় ফোন বন্ধ ছিল বা ফোন ধরা সম্ভব হয়নি। আত্মীয় স্বজন, বন্ধু, রাজনৈতিক কর্মী, সুশীল সমাজের সচেতন নাগরিক, পাড়া প্রতিবেশীসহ বহু লোকজন দেখার জন্য বাড়িতে এসেছেন, পল্লী চিকিৎসক ভাইয়েরা দিন রাত খোঁজ খবর নিয়েছেন ও দেখে গেছেন।

বিশেষ করে ডাঃ স্বপন ভাই সাহসী ভুমিকা নিয়েছেন। প্রশাসনের কাছে কৃতজ্ঞতা জানাই তাঁরাও বিভিন্ন ভাবে আমার শারীরিক খোঁজ খবর নিয়েছেন। বিশেষ ভাবে ধন্যবাদ জানাই ডাঃ সাজেদা পলিন আপাকে যিনি নিজে কয়েকবার ফোন করে আমার খোঁজ খবর নিয়ে ওনার পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করেছেন। অনেক সাংবাদিক ভাইয়েরা খোঁজ খবর নিয়েছেন।

বিশেষ করে দৈনিক চাঁদপুর খবর পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও প্রকাশক সোহেল রুশদী ভাই আম্মার সাথে কথা বলে আম্মার মনোবল ঠিক রাখতে চেষ্টা করেছেন। মা পৃথিবীর সেরা নেয়ামত। আমার অসুস্থ মা কি অসম্ভব ভাবে আমার নার্সিং করে অল্প সময়ের মধ্যে সুস্থ করে তুলেছেন। আমার অসুস্থ বাবা বারবার আমার রুমে এসে কোরআন তেলওয়াত করে দোয়া করে যান। যদি বলি আব্বা আমার কাছে আইসেননা, আব্বা বলে কিছু হবে না আর হইলে হোক, তারপরও তুমি সুস্থ হও। মা-বাবা পৃথিবীর সেরা নেয়ামত। যাদের মা-বাবা বেচে আছেন তাদের সেবা করুন, দেখবেন এমনেতই বালা মোছিবত দূর হয়ে যাবে। সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা, ধন্যবাদ সাথে সকলের দোয়া চাই। আসসালামু আলাইকুম।

প্রসঙ্গত, বিশ্ব করোনা পরিস্থিতিতে জেলার শ্রেষ্ঠ, চাঁদপুর সদর উপজেলার ৬নং মৈশাদী ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মানিকের জনসেবা সর্বস্তরের দৃষ্টান্ত স্থাপন হয়েছে। এ পরিস্থিতিতেও দিন-রাত মানবসেবায় নিয়োজিত ছিলেন। সততা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার মাধ্যমে জনগনের সেবা দেওয়ার অক্লান্ত চেষ্টা চালিয়ে গেছেন।

একই রকম খবর