ঈদুল আযহার গুরুত্ব, করণীয় ও বর্জনীয়

…………….মাও. মো. জাফর আলী………… পৃথিবীর সকল জাতি, ধর্ম, বর্ণ ও গোত্রের মানুষের জন্য আনন্দ উদযাপনের বিভিন্ন দিবস রয়েছে। মুসলমান জাতির জন্যও নির্দিষ্ট আনন্দের দিনের মধ্যে ঈদ অন্যতম। হাদীস শরীফে রয়েছে, প্রত্যেক জাতিরই একটা আনন্দের দিন রয়েছে আর এটি হল আমাদের আনন্দের (ঈদের) দিন। (সহীহ বুখারী: ৯৫২, সহীহ মুসলিম: ২০৯৮)। ঈদ অর্থ খুশি, আনন্দ, প্রত্যাবর্তন, ফিরে আসা, বার বার আগমন ইত্যাদি। যেহেতু দিনটি প্রতি বছরই খুশি ও আনন্দের বার্তা নিয়ে আমাদের মাঝে আগমন করে, তাই দিনটিকে ‘ঈদ’ নামে নামকরণ করা হয়। ঈদ ঐ দিনকে বলে, যে দিন বছরে দু‘বার ফিরে আসে,…

বিস্তারিত পড়ুনঃ-

জননী, তুমি স্বর্গাদপী গরিয়সী

……………………..ড. মোহাম্মদ হাসান খান……………………. ইতিহাসে সবার অবদান সঠিকভাবে উল্লেখ করা থাকেনা অথচ তাদের কে বাদ দিয়ে কোন এক ইতিহাস সৃষ্টি হয়না। তেমন এক মহিয়সী নারীর কথা বলছি। যার কথা ইতিহাসে তেমন ভাবে বলা হয়নি। অথচ তিনি বঙ্গবন্ধুর পাশে থেকে বাঙালির জন্যে নিঃস্বার্থ ভাবে কাজ করে গেছেন। এই মহিয়সী নারীর নাম বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। তিঁনি আমাদের বঙ্গমাতা। আজীবন নিভৃতচারী এই নারী বঙ্গবন্ধুর সকল সংগ্রামে পাশে থেকেছেন। তিনি শুধু বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী নন, জীবন সঙ্গীনিও। তিনি আজীবন তাঁর স্বামীর আদর্শকে লালন করে গেছেন। তাই নিয়তিও যেন মৃত্যুক্ষণটি একদিনে একই সময়ে লিখে দিলো। আজ…

বিস্তারিত পড়ুনঃ-

শুভ জন্মদিন বঙ্গবন্ধু দৌহিত্র জয়

………………………………………………. ড. মোহাম্মদ হাসান খান……………………………………………………….. ডিজিটাল বাংলাদেশ একটি স্বপ্নের নাম। অনেক কটাক্ষ, বক্রোক্তি আর সমালোচনার মধ্যেই এ স্বপ্নের জন্ম। সেই স্বপ্ন এখন বাস্তবে রূপ পেয়েছে। বিশে^র সাথে তাল মিলিয়ে চলার এক অনন্য পদক্ষেপ হলো ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ কনসেপ্ট। এটি বাস্তবায়িত হয়েছে বলে তথ্য ও প্রযুক্তিগত সুবিধা আজ জনগণের হাতের মুঠোয়। বিদ্যুৎ, ইন্টারনেট, সোলার, মোবাইল আজ শহর থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছে গেছে। এর স্বপ্নদ্রষ্টা হলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তনয় সজীব ওয়াজেদ জয়। আজ ২৭ জুলাই তাঁর জন্মদিন। এদিনে তাঁকে জানাই জন্মদিনের অনিঃশেষ শুভেচ্ছা। তথ্য-প্রযুক্তির…

বিস্তারিত পড়ুনঃ-

বঙ্গবন্ধুর মনের মণিকোঠায়

আজ আর বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন নিয়ে কিছু লিখব না। অথবা কারাবন্দী বঙ্গবন্ধুকে নিয়েও কিছু লিখব না। আজ অন্যরকম এক বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কিছু লিখতে চাই। ঘটনাকাল ১৯৬৯-এর জুন মাস। ফরিদপুর শহরের অম্বিকা ময়দানে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী লীগের জনসভায় বক্তব্য দিয়ে ফিরছিলেন। ফেরার পথে জনৈক জেলারের বাসার সামনে দায়িত্বরত এক পুলিশকে দেখে তিনি জিপ থামালেন। তারপর বঙ্গবন্ধু ঐ পুলিশ সদস্যকে উচ্চস্বরে ‘আলমগীর’ বলে কাছে ডাকলেন। তার খোঁজখবর নিলেন। এ ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন অর্থনীতিবিদ মোঃ আব্দুল বাকী চৌধুরী নবাব। তিনি ভেবেছিলেন, পুলিশ সদস্য আলমগীর হয়তো বঙ্গবন্ধুর কোনো আত্মীয় হবেন। কিন্তু পরদিন আলমগীর জানালো, বঙ্গবন্ধু…

বিস্তারিত পড়ুনঃ-

শেখ হাসিনা : বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবি

………………………………………………………ড. মোহাম্মদ হাসান খান ……………………………….. ১৯৪৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর বঙ্গবন্ধু ও ফজিলাতুন্নেসার কোল আলো করে এলো তাঁদের প্রথম সন্তান, অতি আদরের হাসু। বাবাকে খুব কাছ থেকে দেখেছেন হাসু, দেখেছেন তাঁর ব্যক্তি ও রাজনৈতিক জীবন। একদিকে বাবা বঙ্গবন্ধু, অন্যদিকে জননেতা বঙ্গবন্ধু। যে কারণে বাবা বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্রচিন্তা, মানবিক ভাবনা ও সমাজচিন্তা শেখ হাসিনাকে প্রভাবিত করেছে। তাই বর্তমানে তার দেশ পরিচালনা ও নীতি নির্ধারণে আমরা বঙ্গবন্ধু প্রতিচ্ছবি দেখতে পাই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যোগ্য বাবার যোগ্য মেয়ে। আমাদের সৌভাগ্য আমরা বঙ্গবন্ধুর কন্যাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে পেয়েছি। কারণ তিনি না থাকলে আজ এ দেশ সমৃদ্ধ…

বিস্তারিত পড়ুনঃ-

ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর গল্প

…………………………………………মুহাম্মদ ফরিদ হাসান …………………………………………… ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহর অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ পরিচয় রয়েছে। তিনি একাধারে ভাষাবিদ, গবেষক ও প্রাচ্যের অন্যতম সেরা দার্শনিক। মূলত তিনি আজীবন বাংলা ভাষা ও সাহিত্য নিয়ে গবেষণা করে গেছেন। ফলে অগাধ পাÐিত্যের অধিকারী এ মানুষটির গবেষণামূলক কর্মকাÐ নিয়েই সাহিত্যমহলে আলোচনা হয়েছে বেশি। কিন্তু তিনি যে গল্পের পথে হেঁটেছেন, একটি গল্পের বইও আছে তাঁর ‘রকমারি’ নামেÑসে বিষয়টি ওইভাবে আলোচনায় আসেনি। এর কারণ কোনো লেখকের অধিক গুরুত্বপূর্ণ কাজ অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ কাজকে গ্রাস করে ফেলে। মুহম্মদ শহীদুল্লাহর গল্পের বেলাতেও তেমনি হয়েছে। যার কারণে গল্পকার মুহম্মদ শহীদুল্লাহকে খুব কম সংখ্যক সচেতন…

বিস্তারিত পড়ুনঃ-

ইসলাম ও বঙ্গবন্ধু

……………………………………….. ড. মোহাম্মদ হাসান খান …………………………………………. আজ একটি অন্যরকম বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে চাই। ৭৫-এর পর আমাদের দেশে যে ধর্মীয় রাজনীতির উত্থান হয় তাতে বঙ্গবন্ধুর ধর্মীয় চেতনাকেও বিকৃত করা হয়। বঙ্গবন্ধুর প্রণয়নকৃত স্বাধীন বাংলাদেশের সংবিধানে ধর্মনিরপেক্ষতা কথাটি ছিল। ৭৫-এর পর শাসকচক্র একে নষ্ট করে দেয়। আর তখনই শুরু হয় ধর্মকে কেন্দ্র করে রাজনীতি। ধর্মনিরপেক্ষতাকে ধর্মহীনতার বলে প্রচার করা হয়। সংবিধানে বিসমিল্লাহ আর রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ঘোষণা করে সস্তা জনপ্রিয়তা নেওয়ার চেষ্টা করা হয়। আর বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগবে ইসলামবিরোধী বলে প্রচার করা হয়। যা সম্পূর্ণ অসত্য ও বানোয়াট ছিল। জন্মগত…

বিস্তারিত পড়ুনঃ-

৭ মার্চ বাঙ্গালির মুক্তির সনদ

‘‘এবারের সংগ্রাম, মুক্তির সংগ্রাম/এবারের সংগ্রাম, স্বাধীনতার সংগ্রাম।’’ এটি একটি কবিতা, একটি ভাষণ,একটি মাইলস্টোন। একটি জাতির রক্তগাথা সংগ্রামের ইতিহাস, সমস্ত জাতির আশা-আকাক্সক্ষার প্রতিফলন। এক কালজয়ী সময়ের কথা বলছি। কিংবদন্তীর কথা বলছি। ৭ মার্চ ১৯৭১। রেসকোর্স ময়দানে অপেক্ষা করছে দশ লক্ষ বাঙ্গালি। তিনি এসে শোনাবেন মহাকাব্যতুল্য অমর ভাষণ। এটি একটি সাধারণ দিন নয়। এদিন জাতির পিতা বিশে^র সামনে আমাদের নাগরিকত্ব উপহার দিয়েছেন। দিয়েছেন পরিচয়। আজ আমরা বাংলাদেশের নাগরিক। তাই পিতা, আজকের দিনের প্রকৃত নায়ক তোমাকে জানাই সালাম। আর যারা এ দেশের নাগরিক বলে নিজেদের পরিচয় দেয়, সুযোগ-সুবিধা ভোগ করে অথচ আজকের দিনের…

বিস্তারিত পড়ুনঃ-

মাস্টার্স পাশ বেকারের জন্যে ‘বেকার ভাতা’ চালু করা প্রয়োজন

অনেকইতো ভাতা পায় , কিছু শিক্ষিত ছেলে মেয়ে বেকার ভাতা পেলে ভালো হয়। যারা গ্র্য্যাজুয়েশন বা পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন করেছে তারা টগবগে যুব সমাজ , গায়ে গতরে সুঠাম, চিন্তাধারায় পরিচ্ছন্ন ও শালীন, মেধায় টুইটুম্বুর । দেশ, জাতি ও বিশ্বকে নিয়ে এদের অনেক ভাবনা , অনেক স্বপ্ন । কিন্তু একটি চাকরির অভাবে সব মলিন ও ধু ধু বিরানভূমি, হতাশায় নিমজ্জিত । প্রচন্ড মানসিক কষ্টে এরা প্রেম করে না, হাসে না, হইহুল্লোড করেনা এবং এদের কেউ বিয়েও করতে চায় না। এরা এখন পরিবারের বোঝা, আত্মীয় স্বজনের বোঝা, সমাজের বোঝা ।কেবল রাস্ট্র এদের নিয়ে…

বিস্তারিত পড়ুনঃ-

সুশৃঙ্খল সমাজ ব্যবস্থায় গড়ে উঠা একটি ছোট্ট বালকের নিকট শিক্ষণীয় বিষয়

জাপানি পুলিশ বিভাগে কর্মরত একজন ভিয়েতনামি অভিবাসী হা মিন থান তাঁর এক স্বদেশি বন্ধুকে লেখা যে চিঠিটি ‘ফেস বুকের’ মাধ্যমে দেশবিদেশে অবস্থানরত লক্ষ লক্ষ মানুষের কাছে পৌঁছে দেয় তা ‘ঠরৎধষ’ হয়ে ঘুরে বেড়িয়েছে সারা পৃথিবী। সেই ঘটনাকে বিবেচনায় নিয়ে আজকের লেখা। ২০১১ সালের ১১ই মার্চ তারিখে জাপানের সেন্ডাই উপক‚লে ৯.১মাত্রার এক শক্তিশালী ভূমিকম্প হানা দেয়। ভ‚মিকম্পের সাথে আসে সুনামি। ভ‚মিকম্প ও সুনামি, এই দুই প্রাকৃতিক দুর্যোগের যৌথ আঘাতে ফুকুশিমা নিউক্লিয়ার কমপ্লেক্সের ৬টি রিয়েক্টারের মধ্যে ৪টিই ভেঙ্গে পড়ে। ভূমিকম্প, সুনামি ও নিউক্লিয়ার মেল্টডাউনের ফলে ফুকুশিমা-র আশপাশের মানুষ, পশুপাখি, গাছপালা এবং পরিবেশের…

বিস্তারিত পড়ুনঃ-